জেলা প্রথম পাতা

এ কেমন কথা! ভারতীর মুখেই আজ শোনা গিয়েছে রাজ্যে গনতন্ত্র মার খাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিনিধি: এসপি থাকাকালীন যার বিরুদ্ধে গণতন্ত্রকে হত্যা করার অভিযোগ তুলত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। ঘাটালে বিজেপি প্রার্থী সেই ভারতী ঘোষের মুখেই শোনা গেল রাজ্যে গণতন্ত্র মরে গিয়েছে।বুধবার ডেবরায় ভারতী বলেন,কেশপুরে দলীয় পতাকা তুলতে দেওয়া হচ্ছে না। মহিলাদের কাপড় টেনে খুলে ফেলা হচ্ছে। পুলিশ অভিযোগ নিচ্ছে না। থানায় ওসি-আইসিরা তৃণমূল নেতাদের কথা শুনে চলছে। সাধারণ মানুষের কথা বলার অধিকার নেই। স্বাধীনভাবে চলা ফেরা করার অধিকার নেই।

খুব পরিচিত অভিযোগ। ভারতী এসপি থাকাকালীন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি এমনকি যেখানে তিনি যে দলের হয়ে প্রার্থী হয়েছেন সেই দলের নেতারাও এই অভিযোগই তুলতেন ভারতীর বিরুদ্ধে। সময় বদলেছে।ভারতীর অবস্থান বদলেছে। ভারতী বলেন,তিনি নির্বাচন কমিশনকে জানাবেন। প্রয়োজনে আদালতে যাবেন।দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে নির্বাচন কমিশনারের সাথে দেখা করবেন।

সুপরিচিত রাজনৈতিক ছক।জনপ্রতিনিধি ঘাটালের উন্নয়নে ব্যর্থ বলার পাশপাশি প্রকাশ্য ভোট ময়দানে লড়াইয়ের বাইরেও প্রতিপক্ষকে চাপা রাখার কৌশল।দেবের নাম না করে তিনি বলেন, পাঁচ বছরে পাঁচবার দেখা যায় না। মানুষের কষ্টের সময় দেখা যায় না। সমাধান না করতে পারলেও পাশে দাঁড়ানোর কথা বলাটাকে জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব বলেই মনে করি।

এদিন দলের কর্মীদের সাথে ঘরোয়া বৈঠকে অনাহূত ছিলেন খোদ জেলা সভাপতি অন্তরা ভট্টাচার্য। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ভারতীর জবাব সাংবাদিকরা গৃহযুদ্ধ বাঁধানোর চেষ্টা করছে।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।