জেলা প্রথম পাতা রাজ্যের খবর

দুর্ঘটনা এড়াতে জেলাজুড়ে সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ ও গাড়ী চালকদের চক্ষু পরীক্ষার ব্যবস্থা পুলিশের উদ্যোগে

নিজস্ব প্রতিনিধি : পথ নিরাপত্তা সম্বন্ধে ব্যাপক সচেতনতা মূলক কর্মসূচী সত্বেও দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে আকছার। দুর্ঘটনা এড়াতে এবার সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ কর্মসূচীর পাশাপশি স্বাস্থ্য সচেতন বিশেষ করে চক্ষু পরীক্ষার উপর জোর দেওয়ার চিন্তা ভাবনা শুরু করেছেন জেলা স্বাস্থ্য ও পুলিশ বিভাগ। সেফ ড্রাইভ সেভ লাইভ কর্মসূচিতে পুলিশ বিভাগ ও স্বাস্থ্য দফতর যৌথ ভাবে এক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সোমবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমা, রামনগর থানায় এই কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। দেখা যায়, গাড়ী চালানোর সময় বেপরোয়া ভাব, যান্ত্রিক ত্রুটির সাথে সাথে ভিশন বা চোখ অনেক ক্ষেত্রেই দুর্ঘটনার কারন হয়ে দাঁড়ায়। গত কয়েক বছর ধরে দুর্ঘটনা ও তজ্জনিত কারনে প্রাণহানি রুখতে চালক সহ সাধারন মানুষের কাছে পথ নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতন করতে নানা কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। কিন্তু দুর্ঘটনা বা প্রাণহানি প্রতিনিয়ত ঘটেই চলেছে। চালক দের শারীরিক সক্ষমতা বিশেষ করে চোখ সঠিক রয়েছে কি না তা পরীক্ষা করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। সে দিকে লক্ষ্য রেখেই গাড়ী চালকদের চক্ষু পরীক্ষায় জোর দেওয়া হয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর

জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক নিতাই মন্ডল জানান, পুলিশ বিভাগের সাথে যৌথ উদ্যোগে গাড়ি চালকদের চক্ষু পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে ।পথ চলতি গাড়ী চালকদের জেলার বিভিন্ন প্রান্তে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দেখা যায় গাড়ী চালক বিশেষ করে দূর পাল্লায় গাড়ী চালকদের অধিকাংশের শরীরে এইডস এর জীবানু ধরা পড়ে থাকে। চক্ষু পরীক্ষার সাথে কি এইচ আই ভি সংক্রমণের পরীক্ষা করার কোনও পরিকল্পনা রয়েছে? এই প্রশ্নের উত্তরে স্বাস্থ্য আধিকারিক বলেন, “এ বিষয়ে এখনই কিছু বলা যাবে না, তবে চিন্তা ভাবনা রয়েছে।”

জেলা পুলিশ সুপার ভি সোলেমান নেসাকুমার জানান, “জেলা জুড়েই পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে।সমস্ত থানা এলাকায় পরীক্ষা চালানো হবে।” রামনগর থানার ওসি সত্যজিৎ চাণক ও নন্দকুমার থানার ওসি জলেশ্বরতেওয়ারী বলেন, “এদিন থানা প্রাঙ্গনে কয়েকশো গাড়ি চালকদের চক্ষু পরীক্ষা করা হয়েছে।সেইসঙ্গে বহু গাড়িতে ‘সেফ ড্রাইভ-সেভ লাইফ’র স্টিকারও লাগানো হয়েছে।” কাঁথির এসডিপিও সৈয়দ এম.এম হাসান জানান, দুর্ঘটনা এড়াতে পুলিশের তরফে এই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।শিবিরে ছিলেন রামনগর-১ এর বিডিও আশীষ কুমার রায়, রামনগর-১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শম্পা মহাপাত্র, সহ-সভাপতি নিতাই চরণ সার, কর্মাধ্যক্ষ কৌশিক বারিক, রামনগর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি তথা সমাজকর্মী দীপক সার, চিকিৎসক গুরুপদ পণ্ডা-সহ পুলিশের অন্যান্য আধিকারিকেরা। পাশাপাশি এদিন নন্দকুমার থানার উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্থানিয় বিধায়ক সুকুমার দে, পঞ্চায়ের সমিতির সভাপতি দীননাথ দাস অন্যান্য।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।