করোনা দেশ প্রথম পাতা

কোয়ারানটিন থেকে বেপাত্তা ডাক্তার-সহ ১৩ স্বাস্থ্যকর্মী, চাঞ্চল্য উত্তরপ্রদেশের মথুরায়।

বিশ্বে এখন শুধুই করোনা আতঙ্ক। সেই আতঙ্কের সঙ্গে লাগাতার যুদ্ধে প্রথম সারিতেই রয়েছেন ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। কিন্তু তাঁরাই যখন দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করেন, তখন সাধারণ মানুষকে দোষ দেওয়া যায় কি? সম্প্রতি একটি ভাইরাল ভিডিয়ো সামনে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তরপ্রদেশের মথুরায়।
ভাইরাল হওয়া ভিডিয়োতে দেখা গিয়েছে, এক ডাক্তার ফাঁকা রাস্তায় দিয়ে হন হন করে হেঁটে চলেছেন। বলতে গেলে প্রায় দৌড়াচ্ছেন। পিছু পিছু এক পুলিশকর্মী তাঁকে ডেকেই চলেছেন। সেই ডাকে কান না দিয়ে সামনের দিকে এগিয়েই চলেছেন সেই ডাক্তার। পরে পুলিশের একটি দল তাঁকে ধরে নিয়ে যান। পুলিশের অনুমান, কোয়ারানটিন সেন্টার থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন ওই সরকারি হাসপাতলের চিকিত্‍সক।
জানা গিয়েছে, বৃন্দাবনের জেলা হাসপাতালে, সোমবার রাতে এক করোনার রোগী মারা যান। তাঁর সংস্পর্শে আসা ডাক্তার-নার্স-সহ ১৩ স্বাস্থ্যকর্মীকে কোয়ারানটিন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই চিকিত্‍সকও ছিলেন কোয়ারানটিন সেন্টারে। বুধবার রাতে কৃষ্ণা কুটীর কোয়ারানটিন সেন্টার থেকে ওই ১৩জন স্বাস্থ্যকর্মীর হদিস পাওয়া যানি। মাথায় হাত পড়ে যায় পুলিশ-প্রশানের। তবে একটাই স্বস্তির খবর, তাঁদের কারোর শরীরেই করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি।
জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সারভাগ্য রাম মিশ্র একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, কোয়ারানটিন সেন্টার থেকে পালিয়ে গিয়েছেন যে ১৩জন স্বাস্থ্যকর্মী, তাঁদের সকলের বিরুদ্ধেই এফআইআর করা হয়েছে। ওই চিকিত্‍সকের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়েছেন তিনি।
ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের মথুরার প্রেসিডেন্ট ড. অনিল চৌহান জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে জড়িত সকলেরই একটা সামাজিক দায়িত্ব রয়েছে। এইভাবে কেউই এতটা দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো কাজ করতে পারেন না। সমাজকে আরও খাদের কিনারায় নিয়ে গিয়েছেন তাঁরা। তাঁদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Spread the love