দেশ প্রথম পাতা

আজ সোনভদ্রে যাচ্ছেন তৃণমূলের প্রতিনিধি দল

নিজস্ব প্রতিনিধি— অসমের তিনসুকিয়ার পর উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্র। গ্রাম প্রধানের গুলিতে নিহত ১০ গ্রামবাসী পরিবারকে সমবেদনা জানাতে এবং তাঁদের পাশে দাঁড়াতে আজ, শনিবার উত্তরপ্রদেশের ঘোরোয়াল থানার সেই উভভা গ্রামে যাচ্ছে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল৷ রাজ্যসভার সাংসদ তথা তৃণমূল কংগ্রেসের জাতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও’ব্রায়েনের নেতৃত্বে গঠিত হওয়া ওই প্রতিনিধি দলে দলের বর্তমান ও প্রাক্তন সাংসদরাও রয়েছেন৷ থাকবেন দুই বর্তমান সাংসদ সুনীল মণ্ডল ও আবীর রঞ্জন বিশ্বাস এবং প্রাক্তন সাংসদ উমা সোরেন। শুক্রবার দলের অফিসিয়াল ট্যুইটারে এই খবর জানানো হয়।

বিজেপি সরকারের উপর চাপ বাড়াতে আসরে নেমে পড়েছে তৃণমূলও৷ শুক্রবার রাজ্যসভায় বিষয়টি উত্থাপন করেন সুখেন্দুশেখর রায়৷ তিনি বলেন, ধনী কৃষকেরা গরীবদের জমি ছিনিয়ে নিয়ে তাদের খুন পর্যন্ত করছে৷ ২০০ ট্রাক নিয়ে এসে তাণ্ডব চালানো হয়েছে উত্তরপ্রদেশের গ্রামে৷ সুখেন্দুশেখরের প্রশ্ন, পশ্চিমবঙ্গে পান থেকে চুন খসলে অ্যাডভাইসারি পাঠানো হয়৷ কিন্তু সোনভদ্রের মর্মান্তিক ঘটনার পরেও সেই রাজ্যে কেন অ্যাডভাইসারি পাঠানো হবে না? কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদে এসে এই ঘটনার ব্যাখ্যা দিন৷’’

জাতীয় স্তরে নিজেদের গুরুত্ব বজায় রাখতে এই প্রয়াস অনেকদিন ধরেই চালিয়ে যাচ্ছে রাজ্যের শাসকদল। গুরুত্বপূর্ণ কোনও ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রতিনিধিদল আগেও পাঠিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নাগরিকপঞ্জি নিয়ে অসমে পাঁচ বাঙালির মৃত্যুর পর সেখানে সাংসদ, মন্ত্রী ও বিধায়কদের নিয়ে বাছাই করা টিম পাঠান তৃণমূল সুপ্রিমো। তখন ভাবা হয়েছিল, যেহেতু বাঙালি আবেগ এর সঙ্গে জড়িয়ে তাই সেখানে প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছেন মমতা। কিন্তু সোনভদ্রের ঘটনার পর রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মত, আঞ্চলিক দল হলেও জাতীয় স্তরে নিজেদের প্রাসঙ্গিকতা ধরে রাখতে এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চাইছে তৃণমূল। এই ঘটনায় শুক্রবার কলকাতায় গান্ধি মূর্তির পাদদেশে নীরবতা পালন করেছে৷

এদিকে এই ঘটনায় শুক্রবার ঘটনাস্থলে যেতে গিয়ে বাধা পান প্রিয়াঙ্কা গান্ধি৷ তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে অভিযোগ তোলা হয়েছে৷

উল্লেখ্য, জমি নিয়ে বিবাদে গত বুধবার গ্রাম প্রধানের গুলিতে প্রাণ হারান ১০ গ্রামবাসী। আহন হন ২৪ জন। জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালে ৩৬ একর কৃষিজমি কিনেছিলেন গ্রাম প্রধান। পরে সেই জমি বেদখল হয়ে যায়। বুধবার জমির দখল নিতে গ্রামে আসেন গ্রাম প্রধান। উচ্ছেদকারীদের ওঠাতে বহিরাগতদের নিয়ে এসে গ্রামে গুলি চালানোর নির্দেশ দেন বলে অভিযোগ গ্রামবাসীদের।

Spread the love