দেশ প্রথম পাতা

অন্যের কথা নিজের মুখে বসিয়ে লোকসভায় ঝাঁঝালো বক্তব্য রেখেছেন তৃণমূলের মহুয়া! নথি দিয়ে প্রমাণে মরিয়া সংবাদমাধ্যম

নিজস্ব সংবাদদাতা: বাংলা থেকে ২২ জন সাংসদ তৃনমূলের হয়ে গিয়েছেন লোকসভায়। তৃণমূলের তরফে লোকসভায় প্রতিনিধিত্বের দায়িত্ব গিয়েছে কলকাতা উত্তরের সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে। কিন্তু এবারের লোকসভায় অধিবেশনের মধ্যে দেশের সাংসদদের বাড়তি নজর কেড়ে নিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। সংসদে তাঁর প্রথম ভাষণেই সবার নজর কেড়ে নিয়েছিলেন তিনি। তুখোড় ইংরাজি আর স্পষ্ট উচ্চারণে কিছুক্ষণের জন্য যেন গোটা লোকসভা স্তব্ধ করে দিয়েছিলেন তৃণমূলের মহিলা সাংসদ।বিরোধীদের তরফে মহুয়ার বক্তব্যকে সমীহ করে অনেকেই বলেছেন, আগামী দিনে লোকসভায় তৃণমূলের স্ট্রং ম্যান হিসাবে উঠে আসবে মহুয়ার নামই।  কিন্তু মহুয়া মৈত্র এতকিছু ভাবতে নারাজ। কারণ, তুখোড় বক্তব্য রাখতে তিনি আগাগোড়াই অভ্যস্ত। কিন্তু দিন কয়েক কাটতে না-কাটতেই তাঁর ভাষণ নিয়ে শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক। অভিযোগ, একটি মার্কিন প্রকাশনা থেকে নাকি বেমালুম ভাষণ টুকেছেন মহুয়া মৈত্র। এবং সেই বক্তব্য লোকসভায় নিজের নাম দিয়েই চালিয়েছেন।

 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের এডিটর ইন চিফ সুধীর চৌধুরী এক টুইটে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত আসল নথি ও মহুয়া মৈত্রের ভাষণ পাশাপাশি প্রকাশ করেছেন। তাতে দেখা যাচ্ছে, ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি ওয়াশিংটন মান্থলি নামে এক পত্রিকায় প্রকাশিত ‘ওয়ার্নিং সাইনস অফ ফ্যাসিজম’ শীর্ষক প্রতিবেদনের বেশ কয়েকটি পঙক্তি হুবহু তাঁর ভাষণে ব্যবহার করেছেন মহুয়া। কিন্তু তার কোন কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেননি তিনি। আর এই খবর দেখেই বিজেপি বলতে শুরু করেছে, তৃণমূল সাংসদরা এবার লোকসভায় নিজের বক্তব্য রাখতে শুরু করেছেন তাও আবার অন্যের থেকে ধার করে। টুকলি সংস্কৃতি এবার লোসকভাতেও ঢোকাতে চাইছে তৃণমূল। যদিও এইসব ব্যপারে কোন গুরুত্বই দিচ্ছে না বাংলার শাসকদল। তাদের দাবি, ইচ্ছাকৃতভাবে একশ্রেনীর সংবাদমাধ্যম তৃণমূলকে বদনাম করতে চাইছে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।