কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

আরএসএস-এর লোক স্পেশাল অবজার্ভার! এটা কোন গণতন্ত্র, ছবি দেখিয়ে বাংলার পুলিশ পর্যবেক্ষকে আপত্তি মমতার

নিজস্ব প্রতিনিধি: পশ্চিমবঙ্গে লোকসভা ভোটে আধা সামরিক বাহিনীর মোতায়েনের বিষয়টি দেখভাল করার জন্য মঙ্গলবার রাতে বিএসএফের প্রাক্তন ডিজি কে কে শর্মাকে বিশেষ কেন্দ্রীয় পুলিশ পর্যবেক্ষক হিসাবে নিয়োগ করেছিল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। তার পর পরই তৃণমূলের তরফে একটি ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল সোশাল মিডিয়ায়। আর বুধবার স্পেশাল অবজার্ভারের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন কালীঘাটের বাড়িতে সাংবাদিক বৈঠক করে ২০১৯ লোকসভা ভোটের ইস্তেহার প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানেই স্পেশাল অবজার্ভার নিয়োগের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মমতা।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক পশ্চিমবঙ্গের মানহানি করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। এমনকি, তাঁর ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছে বলেও তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী। 

কালীঘাটে নিজে থেকেই তিনি পুলিশ পর্যবেক্ষকের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন। মমতা বলেন, কমিশনের বিরুদ্ধে কিছু বলছি না। বাংলায় পুলিশ পর্যবেক্ষক নিয়োগ নিয়েও কোনও বক্তব্য নেই। কিন্তু যে অফিসারকে বিশেষ কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক হিসাবে নিয়োগ করা হয়েছে, তিনি আরএসএসের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। এরকম একজন অফিসারের নেতৃত্বে আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন হলে ভোটে পক্ষপাতের আশঙ্কা রয়েছে।” এ ব্যাপারে তৃণমূল কমিশনের কাছে আপত্তি জানাবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।এদিন সাংবাদিক বৈঠকে একটি ছবি দেখিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  “আরএসএস-এর অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন এক অফিসার। তিনি আজ স্পেশাল অবজার্ভার? এটা কোন গণতন্ত্র?” প্রসঙ্গত প্রাক্তন আইপিএস কে কে শর্মা-কে স্পেশাল অবজার্ভার হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। কে কে শর্মা আরএসএস-এর সঙ্গে যুক্ত বলে এদিন দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি দেখিয়ে বলেন, খাকি উর্দি পরে তিনি আরএসএস-এর অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন।প্রসঙ্গত, লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণার দিনই মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা জানিয়েছিলেন, এ বারের নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে তাঁরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তাই যে সব রাজ্যে বেশি সংখ্যায় স্পর্শকাতর বুথ থাকবে বা হিংসার আশঙ্কা থাকবে সেখানে বিশেষ পর্যবেক্ষক নিয়োগ করা হতে পারে। তবে সে দিন কিন্তু তিনি এ ব্যাপারে একবারও পশ্চিমবঙ্গের নাম মুখে আনেননি। শুধু বলেন, যে রাজ্যে যেমন পরিস্থিতি উদ্ভূত হবে, সে রাজ্যে সে রকম ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দরকার হলে বাইরের রাজ্য থেকে যথাযথ সংখ্যায় সিনিয়র আমলা ও পুলিশ কর্তাদের এনে বিশেষ পর্যবেক্ষক হিসাবে নিয়োগ করা হবে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।