দেশ প্রথম পাতা ভুমিকম্প

পুনরায় মৃদু কম্পন অনুভূত উত্তর-পূর্বের রাজ্য অসমে।

আবারও মৃদু কম্পনে কেঁপে উঠল উত্তর-পূর্বের রাজ্য অসম। বন্যাকবলিত অসমে শনিবার সকালে ভূমিকম্প অনুভূত হলে স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অসমের হাইলাকান্দির বিস্তৃণ এলাকা জুড়ে শনিবার সকাল ৪.২৫ মিনিটে কম্পন অনুভূত হয় বলে জানিয়েছে জাতীয় ভূকম্পন কেন্দ্র। এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৪.০। অবশ্য এই ভূমিকম্পের জেরে কোন ক্ষয়ক্ষতি বা মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। প্রসঙ্গত, দিল্লি, গুজরাত, অসম, মিজোরাম, লাগাল্যান্ড, লাদাখ-সহ জম্মু ও কাশ্মীর, আন্দামান দ্বীপপুঞ্জে একের পর এক ছোট ছোট মাত্রার কম্পন লেগেই রয়েছে। শুধুমাত্র শনিবারই নয়, শুক্রবারও ভারতের ভূমিকম্পের ধারা অব্যাহত ছিল। ভোর ৪.৫৫মিনিটে কাটরার ৮৮ কিমি দূরে মৃদু কম্পন অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৩.৯। জাতীয় ভূমিকম্প কেন্দ্র থেকে জানা গিয়েছে, কম্পনের মাত্রা খুব কম থাকায় কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। প্রাণহানিরও কোনও ঘটনা ঘটেনি এদিন। মাত্র ৪ ঘন্টার ব্যবধানে কাশ্মীরের পর ভূমিকম্প হয় আন্দামান দ্বীপপুঞ্জেও। সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ আন্দামানের পোর্টব্লেয়ারে কম্পন অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৪.৮। বারবার ছোট ছোট মাত্রার ভূমিকম্প লেগে থাকার কারণে বিশেষজ্ঞ বিজ্ঞানীরা মনে করছেন যে কোন মুহূর্তে বড় ধরনের ভূমিকম্প ঘটতে পারে। বিগত কয়েক মাসে বহুবার ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে ভারতের একাধিক স্থানে। এই তালিকায় রয়েছে দিল্লি, আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ উত্তর পূর্ব ভারত একাধিক রাজ্য। এজন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে আগাম সতর্ক থাকার বার্তা দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। কারণ তারা মনে করছেন, যে কোন মুহূর্তে ভারতে বড় ভূমিকম্প ঘটে যেতে পারে। মূলত আগ্নেয়গিরির লাভাস্রোতের কারণে দেশের বেশকিছু স্থান ভূমিকম্প প্রবণ এলাকা বলে পরিচিত। সেখানেই বারবার মৃদু কম্পন অনুভূত হচ্ছে বলে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন। আর সেই কারণেই সতর্কবাণী শুনিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

Spread the love