জেলা প্রথম পাতা লগডাউন

প্রশাসনের কাছে আর্জি জানানোর পর আজ মঙ্গলবার থেকে খুলে যাচ্ছে ঝাড়্গ্রাম শহরের জুবলি মার্কেট।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই মার্কেট খুলে দেওয়া হবে জানা গিয়েছে। মার্কেট খোলার আগে এদিন সোমবার বিকেলে গোটা জুবলি মার্কেট জুড়ে পুরসভার পক্ষ থেকে তিনটি অটোমেটিক স্প্রে মেশিন দিয়ে স্যানিটাইজ করা হয়। ঝাড়গ্রাম পুরসভার সুত্রে জানা গিয়েছে মার্কেট খুলে দেওয়ার পর গার্ডরেল বসবে বাজারের ভিতরের বিভিন্ন জায়গায়।প্রতিটি ব্যবসায়ীদের জানানো হচ্ছে মুখে মাস্ক পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই ব্যবসা করতে হবে।উল্লেখ্য লক ডাউনের শুরু থেকেই ঝাড়গ্রাম জুবিলি মার্কেটটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।খোলা ছিল কেবল মাত্র মাছ বাজার,সবজি বাজার এবং মার্কেটের ভিতরের কয়েকটি মুদি দোকন সহ অপরিহার্য সামগ্রীর দোকান গুলি।কিন্তু সিংহ ভাগ দোকানই ছিল বন্ধ।মার্কেটের ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গিয়েছে প্রায় হাজার খানেক দোকান বন্ধই ছিল।বেশিরভাগ মধ্যবিত্ত শ্রেনীর ব্যবসায়ীরা নিদারুন আর্থিক সঙ্কটে পড়েছেন।ওই সব দোকানে কর্মরত কর্মচারিদের বেতন দেওয়ার ক্ষেত্রেও আর্থিক সমস্যায় পড়ছেন ব্যবসায়ীরা।ঝাড়গ্রামে গ্রিন জোন হিসেবে শহরের মেন রোড,কোর্ট রোড,নতুন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকার কাপড় দোকান সহ অন্যান্য দোকন খোলা হয়েছে।কিন্তু জুবলি মার্কেট বন্ধ রয়েছে।তার মধ্যে কিছু দিন আগে জুবিলি মার্কেটের একটি মুদি দোকনের কর্মচারির করোনা ধরা পড়ার পরেই পুলিশের পক্ষ মার্কেট সিল করে দেওয়া হয়েছিল।ওই ঘটনার পরেই ঝাড়গ্রাম পুরসভা এবং দমকল মার্কেট স্যানিটাইজ করেছিল।ওই বাজারের অনেকের লালারসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল।প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে মার্কেটর আর কারো করোনা ধরা পড়েনি।এদিকে এদিন সোমবার ঝাড়গ্রাম জুবিলি মার্কটের ব্যবসায়ীরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কয়েকজন প্রতিনিধি ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক,ঝাড়গ্রাম পুরসভার প্রশাসক সুবর্ন রায়ের সাথে দেখা করে মার্কেট যাতে খোলা হয় তার আর্জি জানান।ঝাড়গ্রাম জুবলি মার্কেটের ব্যবসায়ী,প্রাক্তন কাউন্সিলার সিদ্ধার্থ দুবে বলেন “জুবিলি মার্কেটের ব্যবসায়ীরা নিদারুন আর্থিক সঙ্কটে রয়েছেন।লক ডাউনের শুরু থেকে আমাদের সকলের দোকান বন্ধ।দোকান গুলির উপর নির্ভর করে অনেক মানুষের সংসার চলে।তাই আমরা এদিন মহকুমা শাসকের কাছে আর্জি করেছিলাম যাতে মার্কট খুলে দেওয়া হয়।প্রশাসন যেমন নিময় বেঁধে দেবেন সেই ভাবেই আমরা দোকান খুলব।”ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক সুবর্ন রায় বলেন “ কাল থেকেই জুবলিমার্কেট খুলে যাবে।পুলিশকে খুলে দেওয়ার জন্য বলছি।তার আগে মার্কেট স্যানিটাইজ করা হয়েছে।আগেও করা হয়েছিল।ব্যবসায়ীরা যাতে মাস্ক ব্যবহার করেন,সামজিক ব্যবধান মেনে চলেন তার জন্য বলা হচ্ছে।গার্ডরেল বসিয়ে দেওয়া হবে মর্কেটের ভিতরে।”

Spread the love