জেলা প্রথম পাতা

পিংলায় তৃণমূল কর্মীদের ‘টনিক’শুভেন্দুর

নিজস্ব প্রতিনিধি— জনযুদ্ধের সহযোগিতা নিয়ে নয়ের দশকের শেষভাগে যে সন্ত্রাস গড়বেতায় সন্ধিপুর থেকে শুরু হয়েছিল সুশান্ত ঘোষের নেতৃত্বে, তার ঢেউ পিংলা-সংকেও ক্ষতবিক্ষত করেছিল। তারপরেও পিংলা ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। পাঁশকুড়ায় বিক্রম সরকারের জয়ের পথকে মসৃণ করেছিল পিংলা। সিপিএমের হার্মাদদের হাজারও সন্ত্রাস, খুন করে দেহ লোপাট করে দেওয়ার রাজনীতি পিংলার মানুষকে দমাতে পারেনি। ২০১৯ সালের ২৩ মে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই সিপিএমের সেই হার্মাদরাই লাল জামা ছেড়ে গেরুয়া জামা পরে ফের পিংলাকে রক্তাক্ত করছে। পার্টি অফিস ভাঙছে। পঞ্চায়েতকে কাজ করতে বাধা দিচ্ছে। পুরনো দিনের কথা মনে করিয়ে সিপিএমের এই হার্মাদদের মোকাবিলা করার জন্য সংগঠনকে মজবুত করার পরামর্শ দিলেন জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। রবিবার পিংলায় আয়াজিত সভায় শুভেন্দু কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, হতাশ হওয়ার কোনও কারণ নেই। বিজেপির জয় বিতর্কিত বিষয়। ২০১৪ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে সারা রাজ্যে তৃণমূলের ভোট ৪ শতাংশ বেড়েছে। লোকসভা ভোটের নিরিখে ১৬৪টি আসনে তৃণমূল এগিয়ে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন, আছেন, আগামীদিনেও থাকবেন। কর্মীদের শুভেন্দুর বার্তা, একক নেতৃত্বে সমস্যার কোনও সমাধান হয় না। যৌথ নেতৃত্বে বিশ্বাসী হতে হবে। কপালের জোরে রাজনীতি না করে কর্মের জোরে রাজনীতি করুন। সংগঠনকে পুলিশনির্ভর করে দেওয়া হয়েছিল ২০১৩ সালের পর। একটা অলিখিত শক্তি কাজ করত। সেই শক্তি দলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। প্রশাসনে আমরা আছি। আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না। দল ও নেত্রীর বদনাম হবে। প্রশাসনের মাধ্যমে আমরা আপনাদের সাহায্য করব। আপনারা রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যান। পঞ্চায়েতের কাজ নিয়ে বাড়ি বাড়ি যান। খেয়াল রাখবেন, মানুষ যেন ঘরছাড়া না হয়। কাউকে শহিদ হতে না হয়। সিপিএমের আমলে বহু মানুষ শহিদ হয়েছেন, ঘরছাড়া হয়েছেন। এই পিংলাতেও নাকখত দিয়ে ঘরে ফিরতে হয়েছে। আমরা এই পরিবেশ চাই না। এই জেলায় বিরোধীরাও জিতেছেন। আমরা চাই উন্নয়নের প্রতিযোগিতা হোক। এদিন পিংলার ক্ষিরাইয়ে বিজেপির হামলায় পাঁচ তৃণমূলকর্মী জখম হন। প্রতিবাদে পিংলা থানার সামনে তৃণমূলিরা পথ অবরোধ করে। নেতৃত্ব দেন জেলার খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি। পিংলার সভায় ব্লক সভাপতি শেখ সবেরাতি, অজিত মাইতি, উত্তরা সিংহ হাজরা উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love