দেশ প্রথম পাতা

৬ কোটি খরচ করে হবে দিওয়ালি উৎসব, ২০ কোটি দিয়ে মিউজিয়াম বানাবে যোগী সরকার

নিজস্ব সংবাদদাতা: যত কান্ড উত্তরপ্রদেশে। সে গণপিটুনি হোক বা ২০ কোটির মুঘল জাদুঘর বানানোই হোক। দেশের বিকাশের কথা যখন বারবার বলছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, তখন তাঁর দলের সেনাপতি যোদী আদিত্যনাথ উত্তরপ্রদেশকে ঢেলে সাজাতে কোন আপোশের জন্য রাজি নন। কয়েকদিন আগে সাপ্লিমেন্টারি বাজেটে পর্যটক শিল্পকেই পাখির চোখ করেছে যোগী সরকার। সেই বাজেটে ঘোষণা করা হয়, পর্যটক ইন্ডাস্ট্রির জন্য মোট ১৬৩ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে। তার সঙ্গে আগ্রার তাজমহলের কাছেই মুঘল জাদুঘরের জন্য ২০ কোটি টাকা ও অযোধ্যায় দিওয়ালি উৎসব পালনের জন্য মোট ৬ কোটি টাকা ধার্য করা হয়েছে।

সাপ্লিমেন্টারি বাজেটে বলা হয়েছে, বিভিন্ন জায়গায় পর্যটক পরিকাঠামো ও উন্নয়ন এবং সুযোগ সুবিধার জন্য ১০৫ কোটি টাকা ধার্য হয়েছে। এছাড়া মির্জাপুরের বিন্ধ্যাভাসিনি ও সীতাপুরের নৈমিশারণ্যের জন্য ১০ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে। ২০১৬ সালে, অখিলেশ যাদবের সরকার সময় থেকেই মুঘল মিউজিয়াম তৈরির কাজ চলছে। ২০১৭ সালেই তা উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু জাদুঘর গড়ার টাকা, বিদ্যুত্‍ সরবরাহের জন্য স্টোর রুম-সহ নানাবিধ সমস্যার জন্য এই প্রজেক্টটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছিল। তা আবার ফের ফিরছে স্বমহিমায়। সতেরো শতকের সপ্তম আশ্চর্য তাজমহলের প্রায় ১৩০০ মিটারের দূরত্বের মধ্যেই থাকছে মুঘল মিউজিয়ামটি। মুঘল সম্বন্ধে পর্যটকদের বিশেষ ধারণা আনার জন্য এই শিক্ষামূলক মিউজিয়ামটি গড়া হবে। থাকবে মুঘল সময়ের যাবতীয় অস্ত্রশস্ত্র, পোশাক, যুদ্ধের সরঞ্জাম, সংস্কৃতি ও অন্যান্য জিনিসপত্র। জাদুঘর তৈরির কাজ প্রায় ৭৫ শতাংশ করা হয়ে গিয়েছে বলে জানিয়েছে নয়ডার ডিজাইন স্টুডিয়ো আর্কোম।

Spread the love