করোনা জেলা প্রথম পাতা

করোনা আতঙ্কে বন্ধ হাসপাতালের ডায়ালিসিস ইউনিট।

বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের ডায়ালিসিস ইউনিটে চিকিৎসাধীন এক রোগীর লালারসের নমুনা পরীক্ষায় করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসায় ওই হাসপাতালের ডায়ালিসিস ইউনিট আপাতত বন্ধ করে দিলো স্বাস্থ্য দফতর। সেখানে কর্মরত টেকনিশিয়ান ও সুইপারদের হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। বীরভূমের বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে এ জেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী পূর্ব বর্ধমান ও মুর্শিদাবাদ জেলার বহু রোগী এখান থেকে চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে থাকেন। জানা যাচ্ছে, পার্শ্ববর্তী পূর্ব বর্ধমান জেলার আউশগ্রামের উক্তা গ্রাম পঞ্চায়েতের গঙ্গারামপুরের ওই যুবক দীর্ঘদিন ধরেই বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে আসছেন ডায়ালিসিস নিতে। মে মাসের প্রথম পনেরো দিনে তাঁর পাঁচবার ডায়ালিসিস হয়েছে। তারপরই চিকিৎসকেরা তাঁর লালারস সংগ্রহ করে ১২ মে কলকাতার নাইসেডে পাঠান। সেখানকার রিপোর্টে ওই যুবকের শরীরে করোনার প্রমাণের কথা জানানো হয়। তারপরই ওই যুবককে করোনা চিকিৎসার জন্য নির্দ্দিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের ডায়ালিসিস ইউনিটটি আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে পূর্ব বর্ধমানের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রণব রায় জানিয়েছেন, এর আগেও আউশগ্রামের এড়াল এলাকার মুম্বাই থেকে চিকিৎসা করে আসা এক মহিলা ও তাঁর ছেলের শরীরে করোনার প্রমাণ মেলায় তাঁদের কাঁকসার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য রাখা হয়েছে। গঙ্গারামপুরের ওই যুবকের পরিজনদের দাবী, তাঁর জ্বর, সর্দি, গলাব্যথার মতো কোনও উপসর্গ দেখা যায়নি শরীরে। তাই ওই যুবক কী ভাবে আক্রান্ত তা খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য দফতর। ওই যুবককে প্রথমে কাঁকসার মল্লারপুরের কোভিড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও, সেখানে ডায়ালিসিসের কোনও ব্যবস্থা না থাকায় সেখানে ভর্তি করা সম্ভব হয়নি। পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানিয়েছেন, ওই যুবককে কলকাতার বাইপাসের ধারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করানো হয়ছে। তাঁর প্রত্যক্ষ সংস্পর্শে আসা পরিবারের ১০ জন-সহ মোট ৪২ জনকে নিয়ে গিয়ে বর্ধমানের গাংপুরে ‘প্রি- কোভিড’ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ওই একাকার সমস্ত দোকানপাট বন্ধ করে দিয়ে গ্রামের চারপাশ বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিরে দিয়েছে। আউশগ্রাম–১-এর বিডিও চিত্তজিৎ বসু জানিয়েছেন, এলাকায় জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়েছে। গ্রামের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য গ্রামের সব জায়গায় সিভিক ভলেন্টিয়ারদের পাহারায় বসানো হয়েছে।।

Spread the love