দেশ

এক বিজেপি বিধায়কের মৃত্যু, সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর অসুস্থতায়

গোয়াতে টলমল পদ্ম

নিজস্ব প্রতিনিধি— শনিবার রাত দুটো পর্যন্ত প্রার্থী বাছাই নিয়ে বৈঠক করেছে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পৌরহিত্যে এই বৈঠক হয়। কিন্তু তার মধ্যে গোয়া নিয়ে উদ্বেগ বেড়েছে বিজেপি’র। গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পারিক্কর গুরুতর অসুস্থ। সেকারণে পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী কে হবে তাই নিয়ে জরুরি বৈঠকে আজ রবিবার গোয়াতে বসছেন বিজেপি’র কেন্দ্রীয় নেতারা। এদিকে গোয়ায় সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস। সরকার বাঁচাতে এখন তৎপরতা তুঙ্গে গেরুয়া শিবিরে। সূত্রের খবর, আজ পঞ্জিমে বিজেপির জোট শরিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে পারেন অমিত শাহের প্রতিনিধিরা। মনে করা হচ্ছে গোয়ায় পাঠানো হতে পারে নিতিন গডকরিকে। কারণ তিনিই ছিলেন গোয়া বিধানসভা নির্বাচনে দলের পর্যবেক্ষক।বিজেপি সূত্রে খবর, জোটের সব বিধায়কদের গোয়া ছাড়তে নিষেধ করেছে বিজেপি। পাশাপাশি মনোহর পরিক্করের জায়গায় অন্য একজন মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী খোঁজার কাজ শুরু করেছে দল। সূত্রের খবর দলের বিধায়কদের মধ্যে থেকেই কাউকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বেছে নেওয়ার দাবি উঠেছে।

প্রসঙ্গত, গোয়ায় বিজেপির জোটসঙ্গি হিসেবে রয়েছে মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি(৩ বিধায়ক), গোয়া(৩ বিধায়ক) ফরওয়ার্ড পার্টি ও ৩ নির্দল। শনিবার জোটের ৬ বিধায়ক মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পর্রীকরের সঙ্গে দেখা করে সমর্থন দেওয়ার কথা জানিয়ে এসেছেন। তাতেও বিপদ কাটছে না।

গোয়ায় বিজেপির কোর কমিটির সদস্য দয়ানন্দ মান্ডরেকর জানিয়েছেন, মনোহর পর্রীকর যদি ভালো থাকতেন তাহলে কোনও সমস্যা ছিল না। এখন উনি গুরুতর অসুস্থ। দিন দিন তাঁর অবস্থার অবনতি হচ্ছে। এখন সরকার চালাতে গেলে একজন মুখ্যমন্ত্রী চাই।

উল্লেখ্য, গোয়া বিধানসভায় মোট আসন ৪০। এর মধ্যে ৩ আসন এখন খালি রয়েছে। এই মুহূর্তে কংগ্রেসের হাতে রয়েছে ১৪ বিধায়ক। বিজেপি জোটের হাতে ছিল ১৫ বিধায়ক। কিন্তু সম্প্রতি মৃত্যু হয়েছে বিজেপি বিধায়ক সুভাষ শিরোদকরের। তার পরেও কংগ্রেসের কাছ থেকে কোনও চাপ আসছিল না। তবে সমস্যার সৃষ্টি হয় বিধায়ক ফ্রান্সিস ডিসুজার মৃত্যুতে। ফলে বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা গিয়ে হয় ১৩। এর ফলে বিজেপি জোটের হাতে এখন ২২ বিধায়ক। ম্যাজিক ফিগারের থেকে ১ আসন বেশি। এরমধ্যেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পর্রীকর। ফলে সরকার গঠনের দাবি আরও জোরাল ভাবে তুলছে কংগ্রেস।

 

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।