আন্তর্জাতিক প্রথম পাতা শিক্ষা

স্নাতক ছাত্রছাত্রীদের বার্তা দিলেন সুন্দর পিচাই।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলার জন্য সারা বিশ্ব লড়াই করছে। এজন্য প্রায় প্রতিটি দেশ লকডাউন এর পথ বেছে নিয়েছে। এর ফলে বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রতিটি দেশেই বেড়েছে বেকারত্ব। এই পরিস্থিতিতে গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই প্রতিটি স্নাতক ছাত্র ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বিশেষ বার্তা দিলেন। বিশ্ব জুড়ে এক ভার্চুয়াল সমাবর্তনে সুন্দর পিচাই বলেন, তিনি খুব সাধারণ পরিবার থেকে উঠে এসেছেন। আমেরিকায় স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসার সময় তাঁকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়েছিল।তাঁর কথায়, “আমেরিকায় আসার জন্য আমাকে যে প্লেনের টিকিট কিনতে হয়েছিল, তাতে আমার বাবার এক বছরের বেতন খরচ হয়ে যায়। সেই প্রথমবার আমি প্লেনে চড়লাম।

Today on US Google & YouTube homepages we share our support for racial equality in solidarity with the Black community and in memory of George Floyd, Breonna Taylor, Ahmaud Arbery & others who don’t have a voice. For those feeling grief, anger, sadness & fear, you are not alone. pic.twitter.com/JbPCG3wfQW

— Sundar Pichai (@sundarpichai) May 31, 2020

আমেরিকায় সবকিছুই ছিল খুব দামি। বাড়িতে ফোন করতে হলে প্রতি মিনিটে খরচ হত দু’ডলারের বেশি।” পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের তিনি বলেন, আশাবাদী হও। উদার হও। সহজে সন্তুষ্ট হয়ো না। সুন্দর পিচাই বলেন, তাঁরা যখন ছাত্র ছিলেন, প্রযুক্তির সুবিধা খুব বেশি পাওয়া যেত না। কিন্তু এখনকার শিশুরা ‘সবরকমের আকৃতি ও আয়তনের কম্পিউটার হাতে পায়।’ তাঁর কথায়, “আমি যখন বড় হয়েছি, প্রযুক্তির সাহায্য খুব বেশি পাইনি। ১০ বছর বয়সে আমি প্রথম ফোন করেছিলাম। আমেরিকায় গ্র্যাজুয়েট স্কুলে আসার আগে পর্যন্ত আমি নিয়মিত কম্পিউটারে কাজ করার সুযোগ পাইনি। আমাদের পরিবার যখন প্রথম টেলিভিশন কিনেছিল, তখন তাতে ছিল মাত্র একটি চ্যানেল।” এভাবেই নিজের জীবনের ওঠাপড়া নিয়ে নিজের মনের কথা তুলে ধরেন। একজন সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে হয়েও, তাঁর বদলে যাওয়া জীবনের ওঠাপড়া নিয়ে উদাহরণ দিয়ে সকলকে ধৈর্যের সঙ্গে লড়াই করার বার্তা দেন পিচাই।

Spread the love