কলকাতা প্রথম পাতা

বিদ্যুৎ কর্মীদের ডিএ বাড়ার পিছনে জয় দেখছেন সব্যসাচী, তোমার জন্যই বললেন পার্থ

নিজস্ব প্রতিনিধি— বুধবার বিধানসভায় স্পিকারের ঘরের বাইরে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা হয় সব্যসাচীর। পার্থবাবুকে দেখেই তিনি বলেন, “দাদা, খুব খুশি হয়েছি। ডিএ-টা বাড়িয়ে দিয়েছেন।” সাংবাদিকদের সামনেই পার্থ বলেন, “তোমার জন্যই তো খুশিটা হল।” এরপর হাত মিলিয়ে বিধানসভা থেকে বেরিয়ে যান সব্যসাচী।

ইউরোপ ভ্রমণে যাচ্ছেন বিধাননগরের প্রাক্তন মেয়র। ২৬ তারিখ মেয়র নির্বাচনেও থাকবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি ঘুরে শহরে ফিরতে ফিরতে অগস্টের মাঝামাঝি। এ দিন তিনি বলেন, কে মেয়র হল না হল, তাতে তাঁর বিশেষ আগ্রহ নেই।

বিদ্যুৎ দফতরে বিক্ষোভ দেখিয়ে কালীঘাটের চক্ষুশূল হয়েছিলেন এই নেতা। কিন্তু নিজের অবস্থান থেকে সরেননি। ইস্তফা দেওয়ার দিনও সাংবাদিক বৈঠকে বলেছেন, “শ্রমিক কর্মচারীদের পাশে দাঁড়ানো, তাঁদের ন্যায্য দাবি নিয়ে কথা বলা যদি অন্যায় হয়ে থাকে, তাহলে ওই অন্যায় আমি বারবার করব। শ্রমিক, কর্মচারী, মেহনতি মানুষের পাশে দাঁড়ানোটাই আমার কাজ। আগেও করেছি। আগামী দিনেও করব। তাতে কারও অসুবিধে হলে আমার কিছু করার নেই।”

সাম্প্রতি বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীদের নানা দাবি নিয়ে সল্টলেটের বিদ্যুৎ ভবনের সামনে হাজির হয়েছিলেন কর্মীরা। এমনকি তাদের বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে করা আন্দোলনের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বিধাননগরের প্রাক্তন মেয়র সব্যসাচী দত্ত’ও। সেই নিয়ে চরম অস্বস্তিতের মধ্যে পড়তে হয়েছে রাজ্যের শাসক দলকে। অবশেষে রাজ্য বিদ্যুৎ দফতরের অধীনে থাকা তিন সংস্থার কর্মীদের জন্যে ১০ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, ১জুলাই থেকে এই নয়া হারে বর্ধিত ডিএ কার্যকর হবে। বিদুৎ দফতরের অধীনে থাকা উন্নয়ন,উৎপাদন ও সংবহন দফতরের কর্মীরা এই বর্ধিত হারে ডিএ-র সুবিধা পাবেন।

উল্লেখ্য, বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীদের নানা দাবি নিয়ে দিন কয়েক আগেই তুমুল গণ্ডগোলের সৃষ্টি হয়েছিল বিদ্যুৎ ভবনে। তারপরেই ডিএ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত। অনেকেই তাই এই সিদ্ধান্তের পেছনে সব্যসাচীকে সামনে রেখে বিজেপির চাপকেই উল্লেখ করেছেন। সে যাই হোক রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তে ওই তিন বিভাগের কর্মীদের মধ্যে খুশির হাওয়া। এছাড়াও বাকি সমস্ত সরকারি কর্মীদের ক্ষেত্রে যত দ্রুত সম্ভব ডিএ কার্যকরের আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Spread the love