দেশ প্রথম পাতা

কংগ্রেসে আওয়াজ উঠছে প্রিয়ঙ্কা! গান্ধী পরিবারের বাইরে সভাপতি হলে ২৪ ঘন্টাও লাগবে না দল ভাঙতে, মন্তব্য নটবর সিংয়ের

নিজস্ব সংবাদদাতা:  কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধীকে দলের সভানেত্রী করার দাবি ক্রমশ জোরালো হচ্ছে। প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী ইস্তফা দেওয়ার সময় বলেছিলেন, তাঁদের পরিবারের আর কাউকে যেন সভাপতি না করা হয়। এখন কংগ্রেসে সম্পূর্ণ নতুন নেতৃত্ব প্রয়োজন। কিন্তু প্রবীণ কংগ্রেস নেতা সোমবার ‘প্রিয়ঙ্কা গান্ধী লাও’ দাবিতে সুর মিলিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য, গান্ধী পরিবারের বাইরের কেউ সভাপতি হলে কংগ্রেস ২৪ ঘণ্টাও টিকবে না। দু’টুকরো হয়ে যাবে।সোমবার এমনই মন্তব্য করলেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা নটবর সিংহ।

প্রিয়ঙ্কাকে কেন যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে মনে হচ্ছে তাঁর? এই প্রশ্ন করা হলে সংবাদিকদের নটবর বলেন, “উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্রে প্রিয়ঙ্কার ভূমিকা গোটা দেশে দেখেছে। সেখানে থেকে লড়াই চালিয়ে দাবি আদায় করেছেন তিনি। সত্যিই অসাধারণ।” দলীয় সূত্রের খবর, নটবরের মতো দলের বেশির ভাগ নেতাই চাইছেন প্রিয়ঙ্কাকে সভাপতি করা হোক। কিন্তু প্রিয়ঙ্কা এই পদ গ্রহণ করবেন কি না তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন নটবর। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “পুরোটাই নির্ভর করছে প্রিয়ঙ্কা এবং গাঁধী পরিবারের উপর।”এর আগে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী লালবাহাদুর শাস্ত্রীর ছেলে অনিল শর্মা বলেন, প্রিয়ঙ্কাকেই দলের সভানেত্রী করা হোক। কারণ আর কেউ কংগ্রেস কর্মীদের কাছে ১০০ শতাংশ গ্রহণযোগ্য নন। তিনিও সংবাদ মাধ্যমের কাছে আশঙ্কা প্রকাশ করেন, গান্ধী পরিবারের বাইরে কেউ দলের সভাপতি হলে হয়তো অনেকে তাঁকে পছন্দ করবেন না। তাতে দল ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।ইস্তফার পরই রাহুল জানিয়ে দিয়েছিলেন, নেহরু-গাঁধী পরিবারের বাইরে থেকে তাঁর উত্তরসূরি বেছে নিতে হবে। তাঁর এই সিদ্ধান্ত দলকে আরও কঠিন পরীক্ষার মুখে দাঁড় করিয়েছে। রাহুলের যোগ্য উত্তরসূরি খুঁজতে মরিয়া হয়ে উঠেছে দল। কয়েকটি নাম সামনেও আসে। দলীয় সূত্রের খবর, দলের অনেকেই তাতে সায় দেননি। এর মধ্যেই দলের একাংশ আবার প্রিয়ঙ্কাকে রাহুলের উত্তরসূরি হিসেবেই তুলে ধরছেন।এখন দেখার শেষমেষ কার হাতে যায় কংগ্রেসের ব্যাটন।

 

Spread the love