জেলা প্রথম পাতা রাজ্যের খবর

বালি হত্যা রহস্য কিনারা করল পুলিশ!স্ত্রীর দেহ রিকশায় চাপিয়ে গঙ্গায় নিয়ে যায় স্বামী

নিজস্ব প্রতিনিধি : ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হাওড়ার বালির জেটিয়া ঘাটে ব্যাগ থেকে উদ্ধার তরুণীর কাটা মাথা ও দেহাংশের ঘটনার কিনারা করল পুলিশ। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে স্বামী সহ তিনজনকে গ্রেফতার করল পুলিস। ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে ওই মহিলার স্বামী তাকে খুন করিয়ে টুকরো টুকরো করে কেটে গঙ্গায় ভাসিয়ে দেয় বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। শিবপুর থানার গনেশ চ্যাটার্জি লেনের বাসিন্দা সোনি রজককে খুনের অভিযোগে তাঁর স্বামী উপেন্দ্র রজক সহ দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মাথা ও দেহাংশ উদ্ধারের আগের দিন রাতে জেটিয়া ঘাটে একটি রিক্সায় করে আসে তিন জন। সঙ্গে ছিল উদ্ধার হওয়া মাথা, দেহাংশ ও ধারালো অস্ত্র ভরা ট্রাভেল ব্যাগটি। তারাই তা গঙ্গায় ফেলে দেয়। ঘাট সংলগ্ন ডাঃ এএন পাল লেনের ওই এলাকায় কোনও সিসি ক্যামেরা না থাকলেও বালিখাল মোড়ের ক্যামেরার ফুটেজ পরীক্ষা করে একটি ট্যাক্সির সূত্র পায় পুলিশ। ধৃতরা ট্যাক্সি করে এসে জিটি রোডে নামে তিনজন। তারপর সেখান থেকে রিক্সায় করে যায় গঙ্গার ঘাটে। রিস্কা চালককেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে খবর। ট্যাক্সির নম্বরের সূত্র ধরে তদন্ত শুরু করে বালি থানার তদন্তকারী দল। সেই মত শুক্রবার রাতে ট্যাক্সিটির প্রথম সন্ধান পায়। সেই ট্যাক্সির চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করেই জানতে পারে অভিযুক্তের সূত্র। তারপরই মৃতার স্বামী ও তার দুই সঙ্গী সুপারি কিলারকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে হাওড়ার বালির জেটিয়া ঘাটে একটি ব্যাগ উদ্ধার হয়। সেই ব্যাগের মধ্যে থেকেই উদ্ধার হয় মহিলার টুকরো টুকরো দেহ। সেদিন নিহত মহিলার পরিচয় জানা যায়নি। দেহ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিস। শুরু হয় তদন্ত।

খুনের তদন্ত শুরু করে পুলিশ। দেহাংশের ছবি তুলে পাঠানো হয় সমস্ত থানায়। ইতিমধ্যে গণেশ চ্যাটার্জি লেনের বাসিন্দা উপেন্দ্র যাদব তাঁর বউ নিখোঁজ বলে শিবপুর থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন বলে জানা যায়। বউয়ের যে ছবি তিনি থানায় জমা দিয়েছিলেন তার সঙ্গে মিলে যায় গঙ্গা থেকে উদ্ধার হওয়া কাটা মুন্ডুর ছবি। হাওড়ার ডিসি নর্থ অমিত রাঠোর জানান, এরপরেই উপেন্দ্রর সঙ্গে কথা বলে পুলিশ। কথায় ধরা পরে অনেক অসঙ্গতি।

Spread the love