আজকের সারাদিন জেলা প্রথম পাতা

দু’দিনের মধ্যে বালিতে তরুণী খুনের কিনারা করল পুলিশ, কসাইকে দিয়ে দেহ টুকরো টুকরো করে স্বামী

নিজস্ব প্রতিনিধি— ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই বালিতে তরুণী খুনের কিনারা করল পুলিশ। মাত্র দু’দিনের তদন্তে খুনীকে চিহ্নিত করে গ্রেফতার করলেন তদন্তকারীরা। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, খুন হওয়া তরুণী সোনি রজ্জকের বাড়ি হাওড়ার শিবপুরে। শিবপুরের গণেশ চ্যাটার্জি লেনের বাড়িতেই তাঁকে খুন করা হয়। তরুণী খুনের অভিযোগে স্বামী উপেন্দ্র রজক সহ দিলবর খান নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ এবং সাকিল নামে আরও একজনের খোঁজ চালাচ্ছে তারা। সম্পর্কে টানাপোড়েনের জেরে স্ত্রী সোনি রজককে কসাই দিয়ে খুন করেছে বলে জানা গিয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে বালির ডাকাতঘাটির কাছ থেকে একটি ব্যাগের মধ্যে এক তরুণীর কাটা মুণ্ডু পাওয়া যায়। পাশের অন্য একটি শপিং ব্যাগে মেলে তরুণীর পোশাক, মাংস কাটার চপার ও অন্যান্য জিনিস। খুনের মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করে বালি থানার পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ স্থানীয় একটি ক্লাবের সদস্যদের ও স্থানীয়দের কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এরপর বালিখালের সিসিটিভির ফুটেজ দেখে মূল অপরাধীদের চিহ্নিত করে পুলিশ। সেখানে দেখা যায় বৃহস্পতিবার ভোর রাতে বালিখাল এলাকার সিসি ক্যামেরাতেও একটি রিক্সাতে তিনটি লোককে যেতে। তাদের কাছে যেদুটি ব্যাগ ছিল তার সঙ্গে গঙ্গার ধার থেকে উদ্ধার হওয়া ব্যাগগুলি মিলে যায়। এরপর বৃহস্পতিবার রাতে শিবপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় নিহতের স্বামী উপেন্দ্রকে। জেরায় প্রথমে খুনের দায় অস্বীকার করলেও পড়ে স্বীকার করে নেয়। উপেন্দ্র রজ্জককে জেরা করার পর বাকি দুই অভিযুক্তের সন্ধান মেলে। পুলিশ জানিয়েছে, স্ত্রীর সঙ্গে অন্য পুরুষের বিবাহবর্হিভূত সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা উপেন্দ্রর। সম্পর্কের সেই টানাপোড়েন থেকেই সাকিল এবং দিলবর খান নামে দুই কসাইকে দিয়ে সোনিকে নৃশংসভাবে খুন করে। এরপর তার টুকরো টুকরো দেহগুলিকে প্রথমে একটি ব্যাগে ভরে। মাথা এবং দেহের কিছু অংশ অন্য একটি ব্যাগে ভরে গঙ্গায় ফেলে দেয়। সেই ব্যাগদুটি ১৮ জুলাই বালির জেটিয়া ঘাটে উদ্ধার হয়।

Spread the love