অপরাধ আন্তর্জাতিক প্রথম পাতা

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে একমাত্র পাকিস্তানেই রাষ্ট্রের মদতে গণহত্যা চালানো হয়।

সোমবার ভারত রাষ্ট্রপুঞ্জের মানবাধিকার কাউন্সিলে ফের কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে জানায়, পাকিস্তান যেভাবে অন্যের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ তুলছে, তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের দূত সেনথিল কুমার বলেন, পাকিস্তান তার অধিকারের অপপ্রয়োগ করছে। অন্যকে উপদেশ না দিয়ে তারা নিজেরা বরং ভেবে দেখুক, কীভাবে দিনের পর দিন পাকিস্তানের অভ্যন্তরে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়ে চলেছে।দিল্লির অভিযোগ, পাকিস্তানের অন্তর্গত বালুচিস্তানে যাঁরা সরকারের বিরোধিতা করেন, তাঁদের অনেকে নিখোঁজ হয়ে যান। সেখানে অনেকে রাষ্ট্রীয় হিংসার শিকার হন। অনেককে ঘরবাড়ি ছাড়তে বাধ্য করা হয়। সেনাবাহিনী দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায়।

রাজ্যের নানা জায়গায় টর্চার ক্যাম্প চালানো হয়। সেনথিল কুমার স্পষ্ট জানিয়ে দেন, ভারতে সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করার ফলে অন্য দেশের ওপরে কোনও প্রভাব পড়বে না। তা একেবারেই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তাঁর কথায়, “মানবাধিকার কাউন্সিলে পাকিস্তান বরাবর তার অধিকারের অপব্যবহার করে এসেছে। উদ্বেগের বিষয় হল, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে একমাত্র পাকিস্তানেই রাষ্ট্রের মদতে গণহত্যা চালানো হয়। তারা আবার অন্যের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ তোলে।” পরে তিনি বলেন, “যে দেশের নিজেরই বিশ্বাসযোগ্যতা নেই, তারা অপরের মানবাধিকার ও আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার নিয়ে কথা বলে। ধর্মীয় মৌলবাদের উত্থান এবং রক্তপাতের মধ্যে দিয়ে পাকিস্তানের জন্ম হয়েছে। সেখানে প্রায়ই রাষ্ট্রনায়কদের খুন করা হয়, সেনা অভ্যুত্থান ঘটে ও পুতুল সরকার ক্ষমতায় আসে।” পাকিস্তানে কীভাবে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপরে নিপীড়ন চালানো হয়, তাও উল্লেখ করেন ভারতের প্রতিনিধি।

Spread the love