জেলা প্রথম পাতা রাজনৈতিক রাজ্যের খবর

“অধিকাংশ বুদ্ধিজীবী শাসক দলের কেনা গোলাম, এঁরাই দেশদ্রোহী”! বিদ্বজ্জনদের কটাক্ষ দিলীপ-সায়ন্তনদের

নিজস্ব প্রতিনিধি : অসহিষ্ণুতা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন বুদ্ধিজীবীরা। চিঠিতে গণপিটুনিতে মৃত্যু, জয় শ্রী রাম ধ্বনি নিয়ে বাড়াবাড়ির অভিযোগ এনেছেন তাঁরা। বুধবার বিকেলে সাংবাদিক সম্মেলন করে এমন কথাই বললেন অপর্ণা সেন সহ আরও অনেক বিদ্বজনেরা। অসহিষ্ণুতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে খোলা চিঠি লিখেছেন বিদ্বজনেরা। অসিহষ্ণুতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন ৪৯ জন বুদ্ধিজীবী। প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো এই চিঠিতে সই রয়েছে মণিরত্নম, অনুরাগ কাশ্যপ, আদুর গোপাল কৃষ্ণণ, বিনায়ক সেন সহ আরও অনেকের। অসহিষ্ণুতা ইস্যুতে এই চিঠিতে এরাজ্য থেকে সই করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন, গৌতম ঘোষ, অনুপম রায় সহ আরও অনেকেই। এই নিয়েই বুধবার বিকেলে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন তাঁরা। বিদ্বজ্জনদের এই পদক্ষেপকে সমর্থন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তবে বিশিষ্টজনদের এই চিঠিকে ভাল চোখে দেখছেন না বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপ ঘোষ আজ বিদ্বজ্জনদের আক্রমন করে বলেন, “এঁরাই সত্যিকারের দেশদ্রোহী। এঁরা তাবেদার, পরজীবী। এঁরাই দেশকে লুঠে খেয়েছেন। এ রাজ্যে আগে অনেক দলিতের মৃত্যু হয়েছে। তখন চোখে ঠুলি পড়েছিলেন কেন? এখন এঁদের রোজগার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তার জন্যই প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখছেন। এঁরা যেখানে যাবেন সেখানে আমরা ধরনা দেব। পশ্চিমবঙ্গ থেকে এঁদের বেরোতে দেব না।” বিশিষ্টদের নিয়ে দিলীপের এই মন্তব্যে চাঞ্চল্য তৈরি হয়।

তবে বিশিষ্টজনদের এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা সওয়াল করেছেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। তাঁর পাল্টা প্রশ্ন, “জয় শ্রী রাম বলার জন্য যাঁরা গণধোলাইয়ের শিকার, তাঁদের জন্য কেন মুখ খুলছেন না বুদ্ধিজীবীরা?”

একই প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুও। তিনি তোপ দাগেন, “অধিকাংশ বুদ্ধিজীবী মমতার কেনা গোলাম। এদের বিশ্বাসযোগ্যতা নেই।”

Spread the love