দেশ প্রথম পাতা

স্পিকারের সাথে দেখা করে সন্ধ্যের মধ্যে ফের ইস্তফা দিতে হবে বিদ্রোহী বিধায়কদের! বেসামাল পরিস্থিতির মধ্যেই কড়া নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের  

নিজস্ব সংবাদদাতা: আমরা রেজিগনেশন দিয়েছি। কিন্তু স্পিকার তা নিচ্ছেন না। কর্ণাটকের স্পিকার কে আর রমেশ কুমারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন বিদ্রোহী ১৬ বিধায়ক। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট তাঁদের নির্দেশ দিল, আপনারা সন্ধ্যা ছ’টার মধ্যে স্পিকারের সঙ্গে দেখা করুন। যখন তাঁরা দেখা করতে যাবেন, পুলিশ তাঁদের পাহারা দেবে। সুপ্রিম কোর্ট তেমনই নির্দেশ দিয়েছে।

বিদ্রোহীদের সঙ্গে কথা বলে স্পিকার কী সিদ্ধান্ত নেবেন, তা কোর্টকে জানাতে বলা হয়েছে।সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অনুযায়ী আজ দুপুরের মধ্যেই মুম্বই থেকে কংগ্রেস বিধায়করা বেঙ্গালুরুতে ফিরবেন।তারপর ওইসব বিধায়করা পর্যাপ্ত নিরাপত্তা নিয়ে স্পিকারের সাথে দেখা করতে যাবেন।এদিন সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয় সরাসরি স্পিকারের কাছে গিয়ে তাঁদের পদত্যাগের কথা জানাতে হবে কর্ণাটকে ১৬ বিদ্রোহী বিধায়ককে। পাশাপাশি আদালতের পক্ষ থেকে কর্ণাটকের স্পিকারকে গোটা বিষয়টি নিয়ে আজই সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে অনুরোধ করা হয়েছে।গত শনিবার থেকে দফায় দফায় কর্ণাটকের মোট ১৬ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন। তাঁরা শাসক কংগ্রেস ও জেডি এস জোটের সদস্য ছিলেন। গত শনিবারই বিদ্রোহী কয়েকজন বিধায়ককে চ্যাটার্ড প্লেনে মুম্বই উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে এক পাঁচ তারা হোটেলে তাঁরা আছেন।মঙ্গলবার স্পিকার আটজনের ইস্তফাপত্র নাকচ করে দেন। তাঁর বক্তব্য, সেগুলি যথাযথভাবে লেখা হয়নি। বিদ্রোহী বিধায়কদের তাঁর সঙ্গে দেখা করতে বলেন। তাঁর কথায়, শুধু চিঠি দিলেই যদি কাজ হয়ে যেত, তাহলে আমার থাকার কোনও দরকারই পড়ত না। বিদ্রোহীদের অভিযোগ ছিল, স্পিকার ইচ্ছা করে রেজিগনেশন নিতে চাইছেন না। কারণ তিনি শাসক জোটকে আরও কিছুদিন টিকে থাকার সুযোগ দিতে চান। বিজেপির পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীর ইস্তফার দাবিও উঠেছে। রাজনৈতিক মহলের জল্পনা ছিল ইস্তফা দিতে পারেন কুমারস্বামী। তবে সেই সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এনিয়ে রাজ্যের কংগ্রেস নেতা ডি কে শিবকুমার সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, ‘কুমারস্বামীর ইস্তফা দেওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। আমরা শেষ পর্যন্ত লড়াই করব।

 

Spread the love