করোনা দক্ষিণবঙ্গ প্রথম পাতা

প্রসূতির করোনা সন্দেহে সিল কাঁথির নার্সিংহোম, কোয়ারেন্টিনে সব চিকিৎসক, নার্স।

এবার সিল করে দেওয়া হল পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথির একটি নার্সিংহোম। এক প্রসূতির করোনা সন্দেহে এই সিদ্ধান্ত। ওই প্রসূতির লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সব চিকিত্সক ও নার্সদের হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে বলে নার্সিংহোম সূত্রের খবর। কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে ওই প্রসূতির পরিবারের সদস্যদেরও। নার্সিংহোমের বাকি রোগীদের অন্যত্র স্থানান্তরিত করা হয়েছে।
নার্সিংহোম সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হন ওই প্রসূতি। গত রবিবার তিনি একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। কিন্তু তারপর থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। জ্বর ও সঙ্গে শ্বাসকষ্টের সমস্যায় কাহিল হয়ে পড়েন তিনি। জানা গিয়েছে, ওই প্রসূতি প্রথমে কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু উপসর্গ দেখে চিকিত্সকদের সন্দেহ হওয়ায় তাঁকে এনআরএস-এ স্থানান্তরিত করেন। পরে প্রসূতির পরিবার ওই নার্সিংহোমে ভর্তি করায়। প্রসবের পরও তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় সন্দেহ হয় চিকিত্সকদের। বিষয়টি জানানো হয় জেলা স্বাস্থ্য দফতরকেও।
এপ্রসঙ্গে, কাঁথি মহকুমা হাসপাতালের সুপার জানিয়েছেন, “আমাদের আগেই সন্দেহ হয়েছিল, তাই যথাযথ কাগজপত্র তৈরি করেই স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। এই পরিস্থিতিতে মহকুমা হাসপাতালে সংক্রমণ হলে, মারাত্মক পরিস্থিতি তৈরি হবে। মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বাড়বে। এলাকার চিকিত্সা পরিকাঠামো ভেঙে যাবে। প্রসূতির পরিবারের সদস্যরা সব চেপেই ওই নার্সিংহোমে ভর্তি করান। মানুষকে আরও সচেতন হতে হবে।”
ইতিমধ্যেই ওই প্রসূতির লালারসের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। আপাতত সিল করে দেওয়া হয়েছে ওই নার্সিংহোম। তবে এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়।

Spread the love