প্রথম পাতা

দেউলিয়া হয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন লক্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদন— বামেরা ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর লক্ষণ শেঠের দৈন্যদশা ক্রমশ বেড়েছে। হলদিয়ার বেতাজ বাদশা লক্ষণ শেঠ এখন পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে সহায় সম্বলহীন হয়ে নয়, রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে। কখনও নিজের তৈরি ভারত নির্মাণ মঞ্চ কখনও বা বিজেপির হয়ে বেশ কয়েক মাস। তারপর বিজেপিতে কোণঠাসা হয়ে দলত্যাগ এরপর হলদিয়া বন্দরের এক সময়ের শেষ কথা লক্ষণ এখন নোঙর করতে চাইছে কংগ্রেসের ঘরে। কংগ্রেসের বর্তমান ক্ষমতাসীন অংশ লক্ষণকে কাছে পাওয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। যেন আহ্লাদে আটখানা অবস্থা হওয়ার মতো। আসলে যেকোনওভাবে একটা নাম জানা এমন নেতাকে ভোটের ময়দানে হাজির করিয়ে কংগ্রেস পূর্ব মেদিনীপুরে নিজের অস্তিত্ব জানান দিতে চাইছে। লক্ষণ শেঠ দোষী না নির্দোষী, নন্দীগ্রাম কাণ্ডে তাঁর কি ভূমিকা ছিল, সেসব এখন অতীত হয়ে গেছে। মানুষের স্মৃতিবড় দুর্বল। আর রাজনীতিতে আজ যে ভিলেন কাল সে হিরো।ফলে এসব নিয়ে ভাবার সময় কোথায়। লক্ষণকে কংগ্রেসে নেওয়া নিয়ে আপত্তি উঠে এসেছে কংগ্রেসের ঘর থেকেই। সিপিএমও চায় না লক্ষণ কংগ্রেসের ঘরে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠুক। তৃণমূলে ভিড়তে চেয়েও শুভেন্দু অধিকারীর টেনে দেওয়া টপকাতে পারেননি লক্ষণ। তৃণমূলে ঢোকা সম্ভব নয় বুঝতে পেরে এরপর শুরু হয় কংগ্রেসের দরজায় টোকা দেওয়া। যতদূর জানা গিয়েছে, ঘরছাড়া লক্ষণ আজ বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীবারে কংগ্রেসের ঘরে শোভা পেতে চলেছে। সঙ্গে বাড়তি পাওনা তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের টিকিট। একদিনও দল না করে এত প্রাপ্তি লক্ষণের কপালে কতটা সয় তা নিয়ে জল্পনাও কম নয়। তবে তৃণমূল বলছে, লক্ষণ কংগ্রেসের টিকিট পেলে পূর্ব মেদিনীপুরে মানুষ আর কংগ্রেস করবে না। জেলায় কংগ্রেসটা উঠে যাবে। একদিন এই পূর্ব মেদিনীপুর জেলা থেকে অনেক বড় বড় নেতা দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের পথপ্রদর্শক ছিলেন। সেখানে লক্ষণের মতো নেতা কংগ্রেসের হয়ে দেশকে কি দেবে, তা নিয়ে রীতিমতো হাসাহাসি শুরু হয়েছে।

আর এদিকে লক্ষণ কংগ্রেসে যোগ দিতে চেয়ে প্রদেশ কার্যালয়ে নেতাদের একাংশের বাধার মুখে পড়ে কখনও মাঝ রাস্তা থেকে বাড়ি ফিরে গিয়েছে, কখনও বা কোলাঘাটের এক অভিজাত ধাবায় বসে অনুগামীদের নিয়ে ফোনে যোগাযোগ রেখেছে কংগ্রেসের ক্ষমতাসীন অংশের সাথে। যতদূর জানা গিয়েছে, আজও হলদিয়া থেকে অনুগামীদের নিয়ে তিনি বিধানভবনের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। এখন দেখার কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁর মধুচন্দ্রিমা শেষ পর্যন্ত হয়ে ওঠে কিনা।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।