দেশ প্রথম পাতা

মহাজোটের সর্মথন ছাড়াই বেগুসরাই থেকে লড়ছেন কানহাইয়া, শিলমোহর সিপিআই-এর

নিজস্ব সংবাদদাতা: বেগুসরাই থেকেই লড়ছেন জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতা কানহাইয়া কুমার। সিপিআই এবং সিপিআইএমকে বাদ দিয়েই বিহারের আসন সমঝোতা করে কংগ্রেস এবং আরজেডি। এর পরই বেগুসরাই থেকে কানহাইয়ার ভোটে দাঁড়ানো অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। তবে, শনিবার সিপিআইয়ের তরফে জানানো হয়, কানাহাইয়াকে বেগুসরাই থেকে প্রার্থী করা হচ্ছে।প্রথমে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা ছিল কানহাইয়া কুমার বেগুসরাইয়ের মহাজোটের প্রার্থী হবেন। কিন্তু আরজেডি এবং কংগ্রেস সমঝোতায় পৌঁছলেও সিপিআই এবং সিপিএমকে কোনও আসন ছাড়া হয়নি। তার পরই সিপিআই ঘোষণা করে, মহাজোটের সমর্থন ছাড়াই বেগুসরাইয়ের প্রার্থী হবেন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভাপতি কানহাইয়া কুমার।

মহাজোটে সিপিআইকে বাইরে রাখার কারণ বলা হয়েছে, বিহারে সিপিআই এবং সিপিআইএম-র প্রভাব নেই। জনপ্রিয়তা থাকায় সিপিআইএমএল-কে একটি আসন ছাড়া হয়েছে। বিহারের ৪০টি আসনে ১৯টিতে আরজেডি এবং ৯ টিতে কংগ্রেস লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাকি ১২টির উপেন্দ্র কুশওয়ার রাষ্ট্রীয় লোক সমতা পার্টি ৪, জিতনরাম মাঝির হিন্দুস্তানি আওয়াম মোর্চা ৩, মুকেশ সহানির বিকাশশীল ইনসান পার্টি ২ , সিপিআইএমএল একটি এবং শরদ যাববের লোকতান্ত্রিক জনতা দল একটিতে লড়বে বলে জানা গিয়েছে। যদিও আরজেডির তরফে বলা হয়েছে, বিহারে কোনও বাম দলের জনভিত্তি নেই। এমনকি কানহাইয়া কুমারের প্রার্থী পদ নিয়েও তেজস্বী যাদব আপত্তি জানিয়েছিলেন। তাই এর আগে লালুপ্রসাদের সঙ্গে দেখা করে সীতারাম ইয়েচুরি সিপিআই এবং সিপিএমের জন্য আসন সমঝোতার কথা বললেও তাতে রাজি হননি আরজেডি নেতৃত্ব।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।