কলকাতা প্রথম পাতা

দেশের বুদ্ধিজীবিরা একাকাট্টা, নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লেখায় খুনের হুমকি অভিনেতা কৌশিক সেনকে

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেশে বাড়ছে অসহিষ্ণুতা। এই মর্মে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিয়েছেন দেশের বিশিষ্টজনেরা। আর তাতেই তোলপাড় হতে শুরু করেছে গোটা দেশ।দলিত ও মুসলিমদের গণপিটুনির ঘটনায় কড়া শাস্তি দাবি করেছেন ৪৯ জন বুদ্ধিজীবী। এ ধরনের ঘটনায় জামিন ব্যতিরেকে যাবজ্জীবন সাজার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। চিঠিতে উঠে এসেছে ‘জয় শ্রী রাম’ প্রসঙ্গও। বলা হয়েছে, ‘দুঃখজনকভাবে বর্তমানে উস্কানিমূলক যুদ্ধের স্লোগানে পরিণত হয়েছে জয় শ্রী রাম যার ফলে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নিত হচ্ছে। এই নাম করেই বহু গণপিটুনির ঘটনা ঘটছে।’ চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বুদ্ধিজীবীদের প্রশ্ন, ‘২০০৯-এর ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত ধর্মজনিত ২৫৪টি হেটক্রাইমের অভিযোগ উঠেছে। তবে প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে সই করেছেন বিশিষ্যট অভিনেতা কৌশিক সেন। আর এই চিঠিতে নাম থাকার পরেই নাকি প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ফোন আসছে কৌশিকের কাছে, এমনটাই অভিযোগ জানিয়েছেন অভিনেতা।এই হুমকির ব্যাপারে সংবাদমাধ্যমের সামনে অভিনেতা জানিয়েছেন, “কাল রাতে আমি একটা অপরিচিত নম্বর থেকে ফোন পাই। সেখানে আমাকে হুমকি দেওয়া হয়, আমি যদি গণপিটুনি, অসহিষ্ণুতার মতো বিষয়ে বেশি আওয়াজ তুলি তাহলে আমাকে তার ফল ভোগ করতে হবে।

আমাকে এও হুমকি দেওয়া হয়, মুখ বন্ধ না করলে আমাকে খুন করা হবে।” তারপরেই অবশ্য অভিনেতা বলেন, “আমি এই ধরণের ফোনে ভউ পাই না। আমি বাকি ৪৮ জন সাক্ষরকারীকে এই ফোনের কথা জানিয়ে তাঁদের নম্বরটা পাঠিয়ে দিয়েছি।” পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, অভিনেতা মৌখিকভাবে তাঁদের বিষয়টি জানিয়েছেন। কোন নম্বর থেকে ফোন করা হয়েছিল, তা খোঁজ করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।অসহিষ্ণুতার অভিযোগে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন বুদ্ধিজীবীরা। ওই এই চিঠিতে পশ্চিমবঙ্গ থেকে সই করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অপর্ণা সেন, কৌশিক সেন, গৌতম ঘোষ, অনুপম রায়-সহ আরও অনেকে। তবে বুদ্ধিজীবীদের আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ধর্মনিরপেক্ষতার পথ থেকে ভারত দ্রুত সরে আসছে বলে চিঠিতে দাবি করেছেন বুদ্ধিজীবীরা। তাঁদের অভিযোগ উড়িয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, এই ধরনের কোনও রিপোর্ট নেই সরকারের কাছে। তাঁদের দাবির নেপথ্যে পোক্ত ভিত্তিও নেই। দেশের সংবিধানের মূল্যবোধ বাঁচিয়ে রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক আরও জানিয়েছে, দেশে কারফিউ জারির মতো পরিস্থিতি কোথাও নেই।বুদ্ধিজীবীদের পাশে দাঁড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মন্তব্য করেছেন, ‘সবাই জানে দেশে কী চলছে। সবাইকে সম্মান করি। কেউ কেউ আমায় সমর্থন করে, কেউ বিরোধিতা। ওনাদের আশঙ্কার সঙ্গত কারণ রয়েছে। এটাই সরব হওয়ার সঠিক সময়।

 

Spread the love