আন্তর্জাতিক প্রথম পাতা

রাজকোষে প্রায় অর্থ শেষ, খরচ কমাতে আমেরিকায় হোটেল ছেড়ে রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে থাকবেন ইমরান

নিজস্ব প্রতিনিধি : দেশের অর্থসংকট কাটাতে ক্ষমতায় এসেই প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মোষ বিক্রি করেছিলেন তিনি৷ মন্ত্রী-আমলাদের জন্য বরাদ্দ খাবারের পরিমাণে কাটছাঁট করেছিলেন৷ এমনকী, মন্ত্রীদের ফার্স্টক্লাসের বদলে বিজনেস ক্লাসে যাতায়াতেরও নির্দেশ দিয়েছিলেন৷ এই অবস্থায় খরচে কাটছাঁট করতে আমেরিকা সফরে গিয়ে দামী হোটেলে থাকবেন না বলে জানিয়ে দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে ইমরান থাকবেন বলে সূত্রের খবর। সোমবার এমন খবরই জানা গিয়েছে পাক সংবাদমাধ্যম সূত্রে৷

পাকিস্তানের দৈনিক সংবাদপত্র জানিয়েছে, ২১ জুলাই আমেরিকা সফরে যাচ্ছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ইমরান যদি আমেরিকায় গিয়ে পাকিস্তানের দূত আসাদ মজিদ খানের সরকারি বাসভবনে থাকেন, তাহলে সফরের খরচ অনেক কমবে সন্দেহ নেই। কিন্তু ওয়াশিংটনের নগর প্রশাসন বা আমেরিকার গোয়েন্দারা এই বন্দোবস্তকে ভালো চোখে দেখছে না। কোনও দেশের প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি আমেরিকায় গেলে তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্ব মার্কিন সিক্রেট সার্ভিসের। ট্র্যাফিক ব্যবস্থাকে বিঘ্নিত না করেই রাষ্ট্রনায়কের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে তারা।

কিন্তু আমেরিকায় পাক রাষ্ট্রদূত আসাদ মাজিদ খানের বাড়ি এত বড় নয় যে সেখানে সব প্রয়োজনীয় বৈঠক হতে পারে। তার জন্য ইমরান খানকে আবার পাকিস্তানের দূতাবাসে আসতে হবে। তাঁদের উপস্থিতিতে যাতে শহরের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত না হয়, সেজন্য যৌথভাবে কাজ করে নগর প্রশাসন ও আমেরিকার ফেডারেল গভর্নমেন্ট।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক করবেন ইমরান খান৷ যে বৈঠকের দিকে চেয়ে রয়েছে নয়াদিল্লিও৷ ভারতের আশা, এই বৈঠক থেকে সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে পাকিস্তান কড়া বার্তা দেবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷আমেরিকা, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড-সহ অন্যান্যদের সহায়তায় ইতিমধ্যেই জঙ্গি মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক জঙ্গির তকমা দিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ৷

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।