জেলা প্রথম পাতা লগডাউন

হাওড়ায় চার থানা এলাকায় বন্ধ হতে পারে ওষুধের দোকান, ভরসা হোম ডেলিভারি ।

রাজ্যের মধ্যে হাওড়া জেলার রেডস্টার জন হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য দপ্তর এখনো পর্যন্ত হাওড়ার অবস্থা অত্যন্ত স্পর্শকাতর এমতাবস্থায় হাওড়া চারটি থানা এলাকায় বন্ধ করে দেয়া হতে পারে ওষুধের দোকান এজন্য হোম ডেলিভারির ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে হাওড়া সিটি পুলিশ এ বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছে যদিও এখনো পর্যন্ত কোন বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়নি পুলিশের পক্ষ থেকে। এই চারটি থানা এলাকা হল — মালিপাঁচঘরা, হাওড়া, গোলাবাড়ি ও শিবপুর থানা এলাকা। এই সব এলাকার অনেক ওষুধের দোকান এখন দিনের বেশিরভাগ সময় বন্ধ থাকছে বলে এলাকার লোকজন জানাচ্ছেন। এলাকায় বন্ধ রয়েছে বাজার ও মুদিখানার দোকান। এই এলাকাগুলিতে এখন ওষুধের হোম ডেলিভারি দেওয়ার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছে পুলিশ। সে জন্য ইতিমধ্যেই দুটি লিঙ্ক শেয়ার করতে শুরু করেছে পুলিশ।

দোকানদারদের মৌখিক ভাবে বলা হয়েছে ওষুধের হোম ডেলিভারির অর্ডার নিতে। বিষয়টি তদারকি করার জন্য পুলিশের একটি টিম তৈরি করা হয়েছে। ওষুধ পাওয়ার ব্যাপারে পুলিশ সহযোগিতা করবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। তবে এতে চিন্তায় পড়েছেন ওষুধের দোকানিরা। প্রথমত একাই একজনকে ছোট দোকান সামলাতে হয়। এর পরে কেউ একপাতা অ্যান্টাসিড চাইলে সেটাও না করতে পারবেন না। অথচ সেটি বেচে লাভ হবে বড়জোর দেড় থেকে দু’টাকা। খুচরো ওষুধের বিক্রিই যাঁদের মূল ভরসা তাঁরা কী ভাবে হোম ডেলিভারি করবেন তা নিয়ে চিন্তায়। সালকিয়ার সামন্ত ফার্মেসির বরুণ সামন্ত বলেন, “একজন দোকানদার একপাতা অ্যান্টাসিড বিক্রি করে বড় জোর ২ টাকা লাভ করেন। তিনি কী ভাবে এই ওষুধ বাড়িতে পৌঁছে দেবেন!” পুলিশ সূত্রে অবশ্য বলা হয়েছে যে, “পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে না বরং হোম ডেলিভারির উপরেই ভরসা করতে বলা হচ্ছে।”

Spread the love