কলকাতা প্রথম পাতা

দিতে তো চাই, কিন্তু টাকা আসবে কোথা থেকে? প্রশাসনিক বৈঠকেই প্রশ্ন মমতার, সবার মাঝে সামনের সারিতেই জায়গা হল সব্যসাচীরও

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিধাননগরের মেয়র পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন সব্যসাচী দত্ত। কিন্তু তিনি এখনও দলের কাউন্সিলর এমনকি বিধায়কও। তবে মুকুল ঘনিষ্ঠ হয়েই তৃণমূলের বিরুদ্ধে মাঝেমধ্যেই সরব হতে দেখা যেত সব্যসাচীকে। তাই শেষে নিরুপায় হয়ে কার্যত দলের শীর্ষনেতৃত্বের কথাতেই মেয়র পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছ তিনি। কিন্তু শুক্রবার মধ্যমগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনিক বৈঠকে সেই সব্যসাচী দত্তকেই স্বমহিমায় দেখা গেল। মুখ্যমন্ত্রীর সভা মঞ্চের ঠিক সামনে বসে রয়েছেন রাজারহাটের বিধায়ক। প্রসঙ্গত সব্যসাচী এখনও দলের কাউন্সিলর-বিধায়ক থাকাতেই প্রশাসনিক বৈঠকে যে তাঁকে ডাকা হবে সেটাই স্বাভাবিক ছিল।এ দিন প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দিতে যাওয়ার আগে সব্যসাচী যে সব কথা বলেছেন, তার মধ্যেও সেই কৌশলের ইঙ্গিত রয়েছে। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ কর্মীদের ডিএ বাড়ানোর জন্য আন্দোলন করেছিলাম। সেটা সরকার মেনেছে। যদিও খুবই কম ডিএ বাড়িয়েছে। রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের কেন্দ্রের হারে মহার্ঘ ভাতা তথা ডিএ দেওয়ার ব্যাপারে যখন স্পষ্ট নির্দেশ এল, তখন মধ্যমগ্রামে প্রশাসনিক বৈঠক থেকে তাঁর আর্থিক পরিস্থিতির কথাও পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের খরচ খরচা প্রসঙ্গে বলছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই সময়েই তিনি বলেন, “দিতে তো চাই। কিন্তু টাকা আসবে কোথা থেকে? এ বছর ৫৬ হাজার কোটি টাকা ঋণ শোধ করতে হবে। তার উপর পে কমিশন রয়েছে”।লোকসভা ভোটের পর শুক্রবার প্রথম জেলা স্তরে প্রশাসনিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে স্থানীয় নির্বাচিত এক প্রতিনিধির প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “সরকারের টাকার অবস্থা ভাল নয়। চাইলেই টাকা পাওয়া যাবে না”। সেই সঙ্গে বলেন, “প্রত্যেকটা খরচ আগে থেকে ভেবে করতে হবে। আট বছর আগে মাসের এক তারিখে মাইনে হতো না। এখন হয়। আট বছরে গোটা রাজ্য ঘুরে দাঁড় করিয়ে দিয়েছি”। সরকারি প্রকল্পে অর্থ জোগানোর প্রসঙ্গ ধরেই মুখ্যমন্ত্রী এও বলেন, “আমার পক্ষে আর দেওয়া সম্ভব নয়। সরকার কর বাড়াবে না। জল কর নেবে না। বিদ্যুতের মাশুল বাড়াবে না। বিনা পয়সায় শিক্ষার ব্যবস্থা করবে। বিনা পয়সায় স্বাস্থ্য পরিষেবা দেবে। সরকার চলবে কোথা থেকে? এই যে এত মাইনে, হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ টাকাই বা সরকার কোথা থেকে দেবে?”

 

 

 

Spread the love