দেশ প্রথম পাতা

হরিদ্বারে আমিষ খাবার ডেলিভারি করে বিতর্ক! সুইগি ও জ়োম্যাটোকে নোটিস পাঠল সরকার, জবাবদিহি চাইল ডেপুটি খাদ্য সুরক্ষা

নিজস্ব প্রতিনিধি : নিরামিষ জায়গায় আমিষ খাবার। হরিদ্বার শহরে আমিষ খাবার পরিবেশন করায় অভিযোগ তুলে সুইগি ও জ়োমাটোকে নোটিস পাঠাল উত্তরাখণ্ডের স্বাস্থ্য দফতর। উত্তরাখণ্ড সরকারের পাঠানো ওই নোটিসে, রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা বিভাগের তরফে, হরিদ্বার পুরনিগমের বিধি ভাঙার অভিযোগ রয়েছে।

হরিদ্বারের ডেপুটি খাদ্য সুরক্ষা আধিকারিক আরএস পাল বলেন, “হরিদ্বারের নানা জায়গায় আমিষ খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে বলে স্থানীয় ম্যজিস্ট্রেটের কাছে অভিযোগ জানিয়েছিলেন শহরের বেশ কিছু বাসিন্দা। সেই অভিযোগের তদন্তে নেমে ওই দুই সংস্থার কাছে আমিষ খাবার পরিবেশনের বিশেষ অনুমতি FSSAI-এর লাইসেন্স দেখতে চান ম্যাজিস্ট্রেট। কিন্তু তারা তা দেখাতে পারেনি। আমিষ খাবার পরিবেশনের জন্য পুরসভা থেকে অনুমতিও নেয়নি তারা।”

স্থানীয়দের ওই আধিকারিক বলেন, ‘ এটা শুধু ভাবাবেগ নয়। হরিদ্বার পুরনিগমের আইন অনুসারে শহরে আমিষ ভক্ষণ নিষিদ্ধ। হরিদ্বার শহর ও লাগোয়া বিস্তীর্ণ এলাকায় এই বিধি লাগু রয়েছে।’ কারণ দর্শানোর জন্য জ়োমাটো ও সুইগিকে ৭ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। 

এই নিয়ে এক প্রতিক্রিয়ায় জ়োমাটোর তরফে এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘নির্বিঘ্নে ব্যবসা চালাতে আমরা গত কয়েক বছর ধরে FSSAI-এর সঙ্গে একযোগে কাজ করছি। হরিদ্বারে ব্যবসা চালানোর জন্য আমরা ইতিমধ্যে কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছি। পবিত্র এই শহরের ধর্মীয় ভাবাবেগকে আমরা সমর্থন করি। স্থানীয় প্রশাসনের যাবতীয় নির্দেশ আমরা মেনে চলব।’

সুইগির তরফে জানানো হয়েছে, ‘নিষিদ্ধ এলাকায় আমিষ পরিবেশন করায় আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত। অভিযোগ পেয়েই আমরা পদক্ষেপ করেছি। ১৬ মার্চ থেকে হরিদ্বারে সম্পূর্ণ নিরামিষ খাবার পরিবেশন নিশ্চিত করেছি আমরা।’ 

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।