দেশ প্রথম পাতা

গান্ধী-দুর্গে কাঁটা! রাহুলের বিপক্ষে স্মৃতি ইরানির সাথে এবার লড়াইয়ে নামছে রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠ কংগ্রেস নেতার ছেলে

নিজস্ব সংবাদদাতা: দেশের রাজনীতিতে উত্তরপ্রদেশের আমেঠি মানেই কংগ্রেসের নামই বোঝায়। কংগ্রেসের দীর্ঘদিনের গড় সেই আমেঠিতেই এবার লোকসভা নির্বাচনে লড়াই করছেন খোদ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। আর তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপি মাঠে নামিয়েছে স্মৃতি ইরানিকে।এবার রাহুলের বিপক্ষে অন্য দিকে দাঁড়াচ্ছেন এলাকার জনপ্রিয় কংগ্রেস নেতা হাজ়ি সুলতান খানের ছেলে। আর তাতেই খানিকটা হলেও নড়েচড়ে বসেছে কংগ্রেস হাইকমান্ড।কিন্তু কে এই হাজ়ি সুলতান? ১৯৯১ সালে অমেঠি কেন্দ্র থেকে লড়ার সময় রাজীব গান্ধীর মনোনয়নপত্রের প্রস্তাবক ছিলেন হাজ়ি সুলতান। ১৯৯৯ সালে সনিয়া গান্ধীর সময়ও একই ভূমিকা পালন করেন তিনি। গান্ধী পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা থাকায় অমেঠিতে বেশ জনপ্রিয় হাজ়ি সুলতান। এমনকি অমেঠির ফুরসতগঞ্জের তাঁর বাড়িতে সনিয়া, রাহুল ও প্রিয়ঙ্কার যাতায়াত ছিল। সম্প্রতি দলে গুরুত্ব পাচ্ছিল না, এমনই অভিযোগ এনে রাহুলের বিরুদ্ধেই অমেঠি কেন্দ্রে দাঁড়াচ্ছেন তাঁর ছেলে হাজ়ি হারুন রসিদ।কংগ্রেসের সঙ্গে হাজি সুলতান খানের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। তাঁর বাড়িতে আতিথ্য গ্রহণ করেছেন রাজীব–সনিয়া সহ তাঁদের মেয়ে প্রিয়াঙ্কাও। সাংবাদিকদের সেই ‘পারিবারিক’ ছবি দেখিয়ে দলে ব্রাত্য হয়ে পড়ার অভিমান প্রকাশ করেছেন সুলতান পুত্র হারুণ রশিদ। ব্যক্তিগত সম্পর্কের সমীকরণ বদলের দোহাই দিয়ে নির্বাচনী ময়দানে সমর্থন চাওয়া যায় না এই সত্য সম্যক জানেন বলেই রশিদ ইস্যু করেছেন এলাকার উন্নয়নকে। এতদিনের আনুগত্য ছেড়ে কেন তিনি রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধেই নির্বাচনে লড়াই করার সিদ্ধান্ত নিলেন জানতে চাওয়ায় রশিদ বলেন, ‘কংগ্রেসের আঞ্চলিক নেতৃত্ব দীর্ঘদিন ধরেই আমাদের উপেক্ষা করে চলেছে। এবং সেই কারণে আমাদের এলাকার উন্নয়নও উপেক্ষিত হচ্ছে। একই সঙ্গে অবহেলিত হচ্ছে আমাদের সম্প্রদায়।’

অমেঠী নির্বাচনী কেন্দ্রে প্রায় সাড়ে ছ’লক্ষ মুসলিম ভোটার রয়েছেন যাঁরা একটি ভোটও কংগ্রেসকে দেবেন না বলে দাবি করেন রশিদ। প্রসঙ্গত বিগত চার দশক ধরে অমেঠী কংগ্রেসের শক্ত দুর্গ বলেই পরিচিত হয়ে এসেছে।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।