কলকাতা প্রথম পাতা

breaking: দলকে খোঁচা দিয়ে মেয়র পদ থেকে ইস্তফা সব্যসাচী দত্তের! ধোঁয়াশা রাখলেন আগামী দিনের পরিকল্পনা নিয়েও

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিধাননগরের মেয়র পদ ছেড়ে দিলেন সব্যসাচী দত্ত। দীর্ঘ জল্পনার শেষে বৃহস্পতিবার নিজের পদত্যাগের ঘোষণা করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের রাজারহাট-নিউটাউন-এর বিধায়ক।অসৎ ব্যবসায়ী এবং স্বার্থান্বেষীদের কাজে তিনি বাধা দিচ্ছিলেন এবং রাজারহাট এলাকায় জলা ভরাট-সহ নানা অসাধু কাজে বাধা দিচ্ছিলেন, কিন্তু রাজ্য সরকারের কাছ থেকে কোনও সাহায্য তিনি পাননি— অভিযোগ সব্যসাচীর। নির্বাচিত পুরপ্রতিনিধি তথা মেয়র হিসেবে পুর আইনকে যখন রক্ষা করতে পারছেন না, তখন মেয়র পদে থেকে কোনও লাভ নেই— এই কথা বলে বৃহস্পতিবার ইস্তফা ঘোষণা করলেন সব্যসাচী। বুধবারই কলকাতা হাইকোর্ট তাঁর বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলারদের আনা অনাস্থা প্রস্তাবকে বৈধতার প্রশ্নে খারিজ করে দিয়েছে। সেটাকে নিজের নৈতিক জয় বলে দাবি করে এদিন পদত্যাগ করেন সব্যসাচী। তবে কাউন্সিলর পদ থেকে এখনই ইস্তফা দিচ্ছেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন তিনি। তাঁর যুক্তি, জনমতের সমর্থনে তিনি কাউন্সিলর হয়েছেন, তাই এখনই এই পদ থেকে ইস্তফা নয়। এদিন বৈঠেক তিনি বলেন, “ সরকারি কর্মী ইউনিয়নের বিক্ষোভে যোগ দিয়েছিলাম। বিদ্যুত্ভবনে বিক্ষোভের জেরে জটিলতা হয়। তারপরেই  একটি চিঠি পাই। আমার মনে হয় চিঠি আইনসঙ্গত নয়, তাই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হই। হাইকোর্ট আমাদের আর্জিকে মান্যতা দেয়। আদালতে আমার নৈতিক জয় হয়।”

তিনি দাবি করেন, “আমি একের পর এক বেআইনি কাজ দেখেছি। আমি মুখ্যমন্ত্রী, পুলিস প্রশাসনকে জানিয়েছি।  কিছু বেআইনি কাজেবাধা দিই, পুর আধিকারিকদের সাহায্য পেয়েছিলাম।  সব থেকে আশ্চর্য, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে সরকারের এত সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। এত অন্যায়ের সঙ্গে আপোস করে কাজ করা যায় না। কাজ করতে না পারলে পদে থাকা উচিত নয়। তাই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত।তাঁর পদত্যাগপত্র চেয়ারপার্সনকে পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি। এর পরে তিনি কী করবেন? সে ব্যাপারে অবশ্য কোনও ইঙ্গিত দেননি। বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন কিনা সেই প্রশ্নের উত্তরে সব্যসাচী বলেন, সময়ই বলবে কী হয়। একই সঙ্গে তিনি বলেন, মানুষের পাশে থাকব। শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষের জন্য সারা জীবন কাজ করে যাব।

Spread the love