Uncategorized

ভোটের প্রচারে ছিটমহল বিনিময়ের কৃতিত্ব দাবি

নিজস্ব প্রতিনিধি— ভোটরে প্রচার থেকে কোনও কিছুই বাদ যাচ্ছে না। এবার ছিটমহল বিনিময়ের কৃতিত্ব নিয়েও প্রচারে সরগরম সব দলই। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ছিটমহল বিনিময় হয়েছে আগেই। সেখানকার বাসিন্দারা পেয়েছেন ভোটাধিকার। বিদ্যুৎ পৌঁছেছে। তৈরি হয়েছে রাস্তা। আর এই ছিটমহল বিনিময়ের কৃতিত্ব নিয়েই দড়ি টানাটানি শুরু হয়েছে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে। উভয় রাজনৈতিক দলই ছিটমহল বিনিময়ের পিছনে তাদের কৃতিত্ব দাবি করে ভোট প্রচার করছে। বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্যোগেই দীর্ঘদিনের এই ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে। অপরদিকে তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগেই ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই ছিটমহল সমস্যা ছিল। আর এই সমস্যার কারণে দু’দেশের পঞ্চাশ হাজারের বেশি মানুষ কয়েক দশক ধরে নরকযন্ত্রণা ভোগ করে আসছিলেন। হাট-বাজার, স্কুলকলেজ, স্বাস্থ্য পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে ছিলেন। গত ২০১৫ সালের ৩১ জুলাই ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ছিটমহল বিনিময় হয়। ভারতের অভ্যন্তরে থাকা বাংলাদেশি ছিটমহলগুলি ভারতের মূল ভূখণ্ডে মিশে যায়। সেই ভূখণ্ডগুলিতে থাকা ১৪ হাজার বাসিন্দা ভারতের নাগরিকত্বও পান। পান ভোটাধিকারও। পাশাপাশি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থাকা সাবেক ভারতীয় ছিটমহল থেকে হাজারখানেক বাসিন্দা সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে আসেন। তারা বর্তমানে দিনহাটা, মেখলিগঞ্জ ও চ্যাংরাবান্ধা সেটেলমেন্ট ক্যাম্পে রয়েছেন। এই সাবেক ছিটমহলগুলিতে পাকা রাস্তা হয়েছে। পৌঁছেছে বিদ্যুৎ। কয়েকমাস আগে সাবেক ছিটমহলের বাসিন্দাদের জমির অধিকার দেওয়া হয়েছে। আর এই ছিটমহল বিনিময়ের কৃতিত্ব নিয়েই তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে দড়ি টানাটানি শুরু হয়েছে। কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে থাকা এই সাবেক ছিটমহলগুলিতে ১২ হাজারের বেশি ভোটার রয়েছেন। আর এই ভোটারদের নিয়েই শুরু হয়েছে দড়ি টানাটানি। তাই তৃণমূল ও বিজেপি দুই পক্ষই যাবতীয় কৃতিত্ব তাদের বলে দাবি করছে। তৃণমূল বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম ছিটমহলের বাসিন্দাদের যন্ত্রণা উপলব্ধি করতে পেরেছেন। তার উদ্যোগেই ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে। অপরদিকে বিজেপি নেতা দীপ্তিমান সেনগুপ্ত বলেন, ‘ছিটমহলের মানুষ জানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্যোগেই দীর্ঘদিনের এই সমস্যার সমাধান হয়েছে। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ছিটমহল বিনিময় হয়েছে। তবে পিছিয়ে নেই বামেরাও। ফরয়ার্ড ব্লক নেতা আব্দুর রউফ বলেন, ‘ছিটমহল সমস্যার সমাধানের জন্য বামেরাই প্রথম আন্দোলন শুরু করেছিল।’

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।