জেলা প্রথম পাতা

তৃণমূল ও বিজেপির সাথে পাল্লা দিয়ে জোর কদমে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার চালাচ্ছেন সিপিএমের কর্মীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি : ঝাড়্গ্রাম জেলায় সিপিএমের সেভাবে প্রভাব না থাকলেও ভোট প্রচারে তৃণমূল ও বিজেপির সাথে পাল্লা দিয়ে জোর কদমে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার চালাচ্ছেন সিপিএমের কর্মী সমর্থকেরা। এবার ঝাড়্গ্রাম লোকসভা কেন্দ্রে সিপিএমের প্রার্থী প্রাক্তন মন্ত্রী দেবলিনা হেম্ব্রম। এক সময়ের ব্রিগেড কাঁপানো নেত্রী বলে সিপিএমের নেতা কর্মীরা শ্লোগান তুলে প্রচার করছেন। দেওয়ালে দেওয়ালে সিপিওমের চিহ্নের পাশে“ লড়াকু দেবলীনা হেমরম”।এ রমক নানা প্রচার দেখা যাচ্ছে সিপিএমের মিছিল,দেওয়াল লিখনে।কটাক্ষ করে অনেকে বলা শুরু করেছে“ দলের থেকেও সিপিএমের এখন প্রার্থীই যেন সব।” প্রাক্তন মন্ত্রী দেবলীনা হেমরমকে নিয়ে ইতিমধ্যে জেলার বিভিন্ন জায়গায়,শহরে প্রচার শুরু হয়েছে।প্রক্যশ্য জনসভা না হলেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে জন সংযোগ যাত্রা শুরু করেছে সিপিএম। মানুষের কথা শুনচ্ছেন।জানচ্ছেন তারা কেমন আছেন।ঝাড়গ্রাম আসনে সিপিএমের প্রার্থী ঘোষনা হওয়ার দিনই দেবলীনা হেম্ব্রম কে শহরে প্রচার হয়েছিল। সেই শ্লোগানে ব্রিগেড কাঁপানো নেত্রী বলে শ্লোগান উঠেছিল। দেওয়াল লিখন গুলিও অনেকটা সেরকমই। ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূল কোর কমিটির চেয়ারম্যান সুকুমার হাঁসদা বলেন“ সিপিএম এখন অতীত। অতীত উঠলেই হার্মাদদের অত্যাচারের কথা মনে পড়বে সবার।তাই ওরা আর দলের কথা না বলে প্রার্থীর নামটিই বেশি করছে।সিপিএম নামটা শুনলেই লোক পালাবে।তাই দলের কথা তুলচ্ছে না ওরা।”অন্যদিকে ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির সভাপতি সুখময় শতপথি বলেন “ সিপিএমের দলের সংগঠন তো তলানিতে ঠেকেছে। সিপিএমের নাম শুনলে লোকের গায়ে জ্বালা ধরে। তাই তো ওদের প্রার্থীর কথা এত বলতে হচ্ছে।” আর এই বিষয়টি নিয়ে জানাতে সিপিএমের ঝাড়গ্রামে জেলা সম্পাদক বা অন্যান্য নেতৃত্বকে বারে বারে ফোন করা হলেও তারা কেউ ফোন ধরেনি।অন্যদিকে সিপিএমের পক্ষ থেকে রবিবার জেলার নয়াগ্রাম এবং গোপীবল্লভপুরের বিভিন্ন গ্রামে প্রার্থীকে প্রচার সেরেছেন সিপিএমের জেলা নেতৃত্ব। বাড়ি বাড়ি প্রচর করা হয়েছে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।