দেশ প্রথম পাতা বিনোদন

বন্ধ হোক ধর্মের নামে গণপিটুনি, অসহিষ্ণুতা ইস্যুতে সরব বিদ্বজ্জনরা, প্রধানমন্ত্রীকে খোলা চিঠি মণিরত্নম-অপর্না সেনের

নিজস্ব প্রতিনিধি : ‘জয় শ্রীরাম’ এখন যুদ্ধের স্লোগান। মুসলিম-দলিত ও অন্যান্য সংখ্যালঘুদের গণপিটুনি অবিলম্বে বন্ধ হওয়া উচিত।  গোটা দেশের অভ্যন্তরে ক্রমাগত ঘটে চলা গণপ্রহারে মৃত্যু, আক্রমণের স্লোগান হিসেবে ‘জয় শ্রীরাম’–এর ব্যবহার সহ একাধিক ‘দুঃখজনক ঘটনা’তে উদ্বিগ্ন দেশের ৪৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি খোলা চিঠি পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশে। এ ধরনের ঘটনায় জামিন ব্যতিরেকে যাবজ্জীবন সাজার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

এক ঝাঁক বিদ্বজ্জনের লেখা চিঠিতে এমনই সব মন্তব্যে তোলপাড় গোটা দেশ। আদুর গোপালকৃষ্ণন, মণিরত্নম, অনুরাগ কাশ্যপ, অপর্না সেন, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মতো ৪৯ জন সেলিব্রিটি তথা বিশিষ্ট জনের সই করা এই চিঠি পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে।

চিঠির শুরুতেই ভারত যে ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক দেশ এবং এখানে যে জাতি-ধর্ম-বর্ণের ঊর্ধ্বে উঠে সবার সমানাধিকার, তার উল্লেখ করে বিদ্বজ্জনদের বক্তব্য, সংবিধানই সেই অধিকার দিয়েছে। বলা হয়েছে, ‘শুধু সংখ্যালঘুই নয়, হামলা হচ্ছে জয় শ্রীরাম না বলা মানুষগুলির উপরও। এই প্রসঙ্গে অবিলম্বে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে দাবি করেছেন তাঁরা।’ চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) পরিসংখ্যান তুলে ধরে বুদ্ধিজীবীদের বলেছেন, ‘২০০৯-এর ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত ধর্মজনিত ২৫৪টি হেটক্রাইমের অভিযোগ উঠেছে। ২০১৬ সালে দলিতদের শোষণের ৮৪০টি ঘটনা ঘটেছে। প্রিয় প্রধানমন্ত্রী, এই সব ঘটনার অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে?’ এ ছাড়া আরও কয়েকটি সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার সমীক্ষা এবং রিপোর্ট উল্লেখ করে গণপিটুনি ও অন্যান্য অত্যাচারের ঘটনার পরিসংখ্যানও তুলে ধরা হয়েছে চিঠিতে।

এপ্রসঙ্গে পরিচালক অপর্না সেন জানিয়েছেন, “সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার হচ্ছে। জয় শ্রীরাম বলে মারধর চলছে। আজ যদি একজন মুসলমানকে জয় শ্রীরাম বলতে বাধ্য করা হয়, তা কি সমীচীন হবে? প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ অত্যন্ত জরুরি। দেশজুড়ে প্রতিবাদ হওয়া উচিত।”

 

Spread the love