কলকাতা প্রথম পাতা

বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়েই মৃত্যু কাঞ্জিলালের, তদন্ত শুরু করল কলকাতা পুলিশ

নিজস্ব প্রতিনিধি— মেট্রো কান্ডে প্রাথমিক ময়নাতদন্তের পর বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়েই মৃত্যু হয়েছে সজল কাঞ্জিলালের। অন্তত রিপোর্টে এমনটাই স্পষ্ট। একই সঙ্গে পুড়ে যাওয়ার দাগ মিলেছে সজলবাবুর শরীরে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তাঁর হার্ট ব্লক হয়ে যায়। পাশাপাশি তাঁর মাথার ডান দিকে, ঘাড়ের ডান দিকে এবং ডান হাতে চোটের চিহ্ন মিলেছে। আঘাত ছিল কোমরে, বুকে, পায়েও। যদিও শরীরের কোনও হাড় অবশ্য ভাঙেনি বলেই জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তবে মাথার বাম পাশে তীব্র আঘাত লাগায় মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ শুরু হয়ে গিয়েছিল সজলবাবুর।

মেট্রো-ঘটনায় ইতিমধ্যেই চালক ও গার্ডকে সাসপেন্ড করেছেন মেট্রো কর্তৃপক্ষ। ঘাতক রেকের দায়িত্বে থাকা মোটরম্যান সঞ্জয় কুমার এবং গার্ড সুদীপ সরকারের বয়ান রবিবার রেকর্ড করা হয়েছে। রেকর্ড করা হয়েছে চিফ লোকো ইনস্পেক্টরের বয়ানও। মেট্রো রেলের জেনারেল ম্যানেজার পি সি শর্মার নির্দেশে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়েছে।

এদিকে, পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে মেট্রোয় মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। পুলিশের পক্ষ থেকে চিঠিতে বেশ কিছু তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে মেট্রো কর্তৃপক্ষর থেকে। মেট্রোর থেকে সিসি টিভির ফুটেজ চেয়েছে পুলিশ। একই সঙ্গে কীভাবে খোলা দরজা বন্ধ না হওয়া সত্ত্বেও গাড়ি চলল তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি জানা গিয়েছে, ওই দুর্ঘটনার সময় মেট্রোয় যারা উপস্থিত ছিলেন, তাঁদের মধ্য থেকে বেশ কয়েকজনের বয়ান সংগ্রহ করেছে পুলিশ। সেই বয়ানের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে।

অপরদিকে, মেট্রো কান্ডে তদন্তে নামছেন কমিশনার  অফ  রেলওয়ে  সেফটি। আজ আসছেন তাঁরা। একই সঙ্গে ঘটনাস্থলে যাবেন রেল কর্তাও। পার্কস্ট্রিট ও টালিগঞ্জ মেট্রো স্টেশনে যাবেন তিনি। একই সঙ্গে দুর্ঘটনাগ্রস্ত ট্রেনটিকে পরীক্ষা করেও দেখবেন বলে জানা গিয়েছে।

 

Spread the love