দেশ প্রথম পাতা

হোটেলে ঘর বুকিং কিন্তু ঢুকতে দিল না পুলিশ! কর্ণাটকের অঙ্কে নতুন মোড়, হোটেলের বাইরেই বৃষ্টিতে ভিজতে হল শিবকুমারকে

নিজস্ব সংবাদদাতা: কর্ণাটকের সরকার থাকবে না যাবে, এই নিয়ে বুধবার রীতিমতো নাটক হয়ে গেল মুম্বইয়ে।বুধবার সকালে মুম্বই পৌঁছান কংগ্রেসের অন্যতম শীর্ষ নেতা ডি কে শিবকুমার৷ ওঠার কথা ছিল একটি পাঁচতারা হোটেলে, যেখানে প্রায় সময়েই তিনি থাকেন৷ কিন্তু হোটেলে প্রবেশে তাঁকে বাধা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ৷ কারণ,ওই হোটেলেই ‘বন্দি’ কর্ণাটকের বিদ্রোহী বিধায়করা৷ঘটনার সূত্রপাত এদিন সকালে। কর্ণাটকের বিদ্রোহী বিধায়করা এখন রয়েছেন মুম্বইয়ের রেনেসাঁস হোটেলে। মঙ্গলবার রাতে তাঁরা পুলিশকে চিঠি লিখে বলেন, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী ও কংগ্রেসের ট্রাবলশুটার বলে পরিচিত ডি কে শিবকুমার জোর করে হোটেলে ঢুকে পড়তে পারেন। তাতে আমাদের বিপদ হতে পারে।মহারাষ্ট্রের বিজেপি সরকারের পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে হোটেল ঘিরে কড়া পাহারার ব্যবস্থা করে। বুধবার সকালে হোটেলের সামনে সত্যিই হাজির হন শিবকুমার। পুলিশ তাঁকে গেটেই আটকে দেয়। তিনি বলেন, হোটেলে আমার ঘর বুক করা আছে। আমার বন্ধুরা এই হোটেলে আছেন। আমি ভিতরে গিয়ে তাদের সঙ্গে গল্প করব, কফি খাব।পুলিশের কথায়, তিনি বারবার বলছিলেন যে তিনি ঘর বুক করে এসেছেন৷ হোটেল তাঁকে এভাবে ফেরাতে পারে না৷ শিবকুমার বলেন, ‘আমি এখান থেকে কিছুতেই যাব না৷ দিনভর এখানেই বসে থাকব৷’ তারপরই অনুননয়ের সুরে তিনি বলেন, ‘আমাকে ঢুকতে দিন৷ আমি আরাম করতে চাই, বিশ্রাম করতে চাই৷ সঙ্গে সঙ্গে এক পুলিশ অফিসার নাকি তাঁকে বলেন, তাঁর বিশ্রাম এবং কফির ব্যবস্থা পুলিশই করে দেবে৷ এও জানানো হয়, ওই পাঁচতারা হোটেলে নয়৷ স্থানীয় কোনও গেস্ট হাউসে শিবকুমারের থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে৷ বেশ কিছুক্ষণ বৃষ্টির মধ্যে তাঁকে বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় বলেও অভিযোগ করেন কর্ণাটকে কংগ্রেসের সংকটমুক্তিকারী এই নেতা৷

এদিকে, শিবকুমারকে দেখেই হোটেলের বাইরে স্লোগান তুলে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন অনেকে৷ গেটে পোস্টারও পড়ে৷ তাঁর গাড়ি ধরেও চলে বিক্ষোভ৷ কর্ণাটকে জেডিএস-কংগ্রেস জোট সরকারের টালমাটাল পরিস্থিতিতে গোটা ঘটনার জন্য কংগ্রেস নেতা শিবকুমার দায়ী করেছেন বিজেপিকেই৷ তাঁর কথায়, ‘দেখতে এসেছিলাম, আমাদের বন্ধুরা এখানে কেমন আছেন৷ তাঁদের সঙ্গে কথা বলতাম, খোঁজখবর নিতাম৷আমরা এই দলের জন্য সবসময়ে এক হয়ে কাজ করেছি, করেও যাব৷’

 

Spread the love