দেশ প্রথম পাতা

চাপের মুখে পড়ে উন্নাও ধর্ষণকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত বিধায়ক কুলদীপকে বরখাস্ত করল বিজেপি

নিজস্ব প্রতিনিধি : দেশজুড়ে প্রবল চাপের মুখে অবশেষে উন্নাও ধর্ষণকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত বিধায়ক কুলদীপ সিং সেঙ্গারকে দল থেকে বরখাস্ত করল বিজেপি। উন্নাও ঘটনায় যোগী সরকারের তুলোধনা শুরু করেছে বিরোধীরা। পূর্ব উত্তর প্রদেশে দায়িতপ্রাপ্ত কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরা টুইটে লেখেন, বিজেপি আর কিসের জন্য অপেক্ষা করছে? ধর্ষণের অভিযোগের পর নির্যাতিতাকে খুনের চেষ্টার অভিযুক্ত বিধায়কের বিরুদ্ধে FIR করা হলেও কেন বিজেপি তাঁর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন বিরোধীরা। সিবিআই তদন্তের দাবি জানান সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব। উন্নাও ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।

তবে উন্নাও ধর্ষণকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত বিধায়ক কুলদীপ সিং সেঙ্গারকে এক বছর আগেই বরখাস্ত করা হয় বলে বিজেপির মুখপাত্র রাকেশ ত্রিপাঠি দাবী করেন। আজ সাংবাদিক বৈঠকে কুলদীপ বিরুদ্ধে বিজেপির মুখপাত্র রাকেশ ত্রিপাঠি জানান, ২০১৮ সালে এপ্রিলে তাঁকে দল থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে, সে সময় প্রেস বিবৃতি দেওয়া হয়নি। মঙ্গলবার দলের অবস্থান স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়, কুলদীপের বরখাস্তের নির্দেশ আগামী দিনেও জারি থাকবে।

উন্নাওয়ের ধর্ষিতা লাইফ সাপোর্ট সিস্টেমে, জেলে থাকা বিধায়কের নামে এফআইআর! প্রিয়ঙ্কা বললেন, ‘সুশাসন’

রবিবার উত্তরপ্রদেশে উন্নাও থেকে রায়বরেলী যাওয়ার পথে একটি ট্রাক ধাক্কা মারে ধর্ষিতার গাড়িতে। প্রথমে পুলিশ জানিয়েছিল, ধর্ষিতার মা এবং ওঁদের আইনজীবী মহেন্দ্র সিংহ মারা গিয়েছেন। পরে জানা গিয়েছে, ধর্ষিতার মা গাড়িতে ছিলেন না। মারা গিয়েছেন ধর্ষিতার কাকিমা এবং তাঁর বোন। ধর্ষিতা নিজে এবং আইনজীবী মহেন্দ্র গুরুতর জখম হয়ে লখনউয়ের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

উন্নাও মামলায় গোড়া থেকেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বারবার। ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার পরে পুলিশ এফআইআরে কুলদীপের নাম রাখতে চায়নি বলে অভিযোগ। ধর্ষিতার বাবাকে কুলদীপের লোকজন মারধর করার পরে পুলিশ হেফাজতেই তাঁর মৃত্যু হয়।

Spread the love