জেলা প্রথম পাতা

লোকসভা ভোটের আগে জঙ্গলমহলের ফের মাওবাদী পোস্টার ঘিরে ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধি : লোকসভা ভোটের আগে জঙ্গলমহলের ঝাড়্গ্রাম জেলায় ফের মাওবাদী পোস্টার উদ্ধার হওয়ায় ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। গত কুড়ি মার্চ বেলপাহাড়ি থানার সরিশাবাসা এলাকার বাঁশকাটিয়া গ্রাম সংলগ্ন রাস্তা থেকে পোস্টার গুলি উদ্ধার করে পুলিশ। তবে পুলিশ জানিয়েছে মাওবাদীদের নাম করে দেওয়া ওই পোস্টার গুলি আসল নকল। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে প্রথমে ভিলেজ পুলিশ মারফত খবর পেয়ে পুলিশ পোস্টার গুলি উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। সাদা কাগজে লাল কালিতে হাতে লেখা পোস্টার গুলিতে রাস্তা হচ্ছে না কেন তাই নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তবে পুলিশ মনে করছে স্থানীয় কেউ ব্যক্তিগত স্বার্থে পোস্টার গুলি লাগিয়েছে।পুলিশ ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে।এলাকার আশেপাশে গ্রামে জিঞ্জাসাবাদ শুরু করে পুলিশ।যারা এই পোস্টার গুলি লাগিয়েছে লোকাল সূত্র ধরে তল্লাশি শুরু করেছে।এই বিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলার পুলিশ সুপার (অপারেশন) কুমার ভূষন বলেন “ পোস্টার গুলি আসল নয়।যে ভাষায় পোস্টার গুলি লাগানো হয়েছে সেগুলি মাওবাদীদের নয়।স্থানীয় কেউ বদমাইশি করে পোস্টার গুলি সাঁটিয়েছে।পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।যে বা যারা এই পোস্টারের সাথে যুক্ত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” উল্লেখ্য কিছু দিন আগে বেলপাহাড়ি থানার ভুলাভেদা অঞ্চলের তালপুকুড়িয়া গ্রামের  রাস্তার ধারে দু বস্তা হাত বোমা উদ্ধার করেছিল পুলিশ।বোম স্কায়াড এসে বোম গুলি উদ্ধার করে।সে ক্ষত্রেও কেই বা কারা আতঙ্ক তৈরি করার উদ্দেশ্য বোম গুলি রেখে ছিল বলে পুলিশ মনে করেছিল।এর আগেও ঝাড়গ্রাম জেলার জামবনি,লালগড় সহ বিভিন্ন ব্লকে এবং পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার বিভিন্ন ব্লকে মাওবাদী নামাঙ্কিত পোস্টার উদ্ধার করেছিল পুলিশ।বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই পোস্টার গুলি নকল বলে মনে করছে পুলিশ।তবে ভোটের আগে এক সময়ের মাওবাদীদের আতুর ঘর বলে পরিচিত বেলপাহাড়িতে কয়েক দিনের মাথায় আবারও মাওবাদীদের নামাঙ্কিত পোস্টার উদ্ধার হওয়ায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।অন্যদিকে পুলিশও পুরো ঘটনায় তদন্ত শুরু করছে।তবে লাগোয়া ঝাড়খন্ড রাজ্য থেকে কেউ এসে পোস্টার গুলি লাগিয়েছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখচ্ছে পুলিশ।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।