করোনা জেলা প্রথম পাতা

করোনা আক্রান্ত অশোক ভট্টাচার্য্যে, দ্রুত আরোগ্য কামনায় শুভানুধ্যায়ী।

করোনা আক্রান্ত হলেন শিলিগুড়ি পুর নিগমের প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান অশোক ভট্টাচার্য্য। কোভিড পজিটিভ এসেছে, তার তৃতীয় বারের স্যোয়াব টেস্ট রিপোর্ট। রবিবার সন্ধ্যায় প্রথম স্যোয়াব টেস্ট রিপোর্ট এসে পৌঁছয় অশোক ভট্টাচার্য্যের। সেই টেস্ট রিপোর্ট কোভিড নেগেটিভ আসে। কিন্তু তার পরেও অশোক ভট্টাচার্য্যের শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায়, মঙ্গলবার সকালে অশোক ভট্টাচার্য্যের ফের স্যোয়াব নেওয়া হয়। সেই টেস্ট রিপোর্টও কোভিড নেগেটিভ আসে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায়, মঙ্গলবার দুপুরের পর তাকে শিলিগুড়ি মাটিগাড়া সংলগ্ন একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিতিৎসাধীন অবস্থায় তার করোনা উপসর্গগুলি আরও প্রকট হওয়ায়, মঙ্গলবার রাত সারে এগারোটা নাগাদ আবার স্যোয়াব সংগ্রহ করা হয় অশোক ভট্টাচার্য্যের। বুধবার অশোক ভট্টাচার্য্যের তৃতীয় স্যোয়াব টেস্ট রিপোর্ট কোভিড পজিটিভ আসে।

শিলিগুড়িতে কোভিড মোকাবিলায় যারা ফ্রন্টলাইনে থেকে কাজ করেছেন, তাদের মধ্যে অশোক ভট্টাচার্য্য অন্যতম। একদিকে মেয়র এবং পরে প্রশাসক বোর্ডের চেয়ার পার্সন হিসেবে সামলেছেন পুর নিগমের দায়িত্বভার, অন্যদিকে খবর পাওয়া মাত্রই পৌঁছে গিয়েছেন কোভিড আক্রান্ত এলাকায়। শিলিগুড়ি পুর নিগমের বস্তি এলাকাগুলিতে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিতে নিয়েছেন অগ্রণী ভূমিকা। পৌঁছে দিয়েছেন করোনা দুর্গত মানুষদের কাছে প্রয়োজনীয় সামগ্রী।

কিন্তু বেশ কয়েকদিন ধরে করোনা মোকাবিলায় রাস্তায় নেমে কাজ করতে দেখা যাচ্ছিলো না শিলিগুড়ি পুর নিগমের প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান অশোক ভট্টাচার্য্যকে। জ্বরে আক্রান্ত হওয়ায়, স্বাস্থবিধি মেনে নিজেকে ঘরবন্দী করে রেখেছিলেন অশোক বাবু। কিন্তু, জ্বরে আক্রান্ত থাকাকালীন দলের এবং পুর নিগমের প্রশাসক বোর্ডের কয়েকজন তার সঙে দেখা করতে আসেন। তাঁদের মধ্যে কাকে কাকে কোয়ারানটাইনে নেওয়া হবে, তা এখনও কিছু জানানো হয়নি স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষ থেকে।

অশোক ভট্টাচার্য্যের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন শুভানুধ্যায়ী, সহকর্মী সহ আপামর শিলিগুড়ির মানুষ।

Spread the love