কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

বাবুলের পর এবার কমিশনের নজরে তৃণমূলের ৪ হেভিওয়েট নেতা! কমিশনের দারস্থ বিজেপি

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেশে ভোটের দামামা বাজিয়ে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন।নিজেদের মতো প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে শাসক-বিরোধী সব রাজনৈতিক দলই। গোটা ভোট প্রক্রিয়া ওপর কড়া নজর রাখছেন কমিশনের কর্তারা।বিজেপির থিম সং গেয়ে কমিশনের রোষানলে পড়েছেন বাবুল সুপ্রিয়।শুধু তাই নয় বাবুলের গাওয়া গান নিয়ে আসানসোল পুলিশের কাছেও অভিযোগ জানিয়েছে তৃণমূল। বাবুল সুপ্রিয়কে শোকজ করেছে নির্বাচন কমিশনও। এবার তৃণমূলের ফিরহাদ হাকিম, অনুব্রত মণ্ডল, রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও জিতেন্দ্র তিওয়ারির নামে নির্বাচন কমিশনের কাছে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ করল বিজেপি।  রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের কাছে তাদের দাবি, তৃণমূলের এই চার নেতাকে গোটা নির্বাচন প্রক্রিয়া থেকে বাদ দিতে হবে।আসানসোলের মেয়র জিতেন তিওয়ারি দলীয় কর্মীদের টোপ দেন। তিনি বলেন, ”৫ হাজারের বেশি লিড দিতে পারলেই, এক কোটি টাকার সরকারি কাজের বরাত পাওয়া যাবে।”
নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা হয়ে যাওয়ার পর এধরনের মন্তব্য নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ করছে বলে অভিযোগ বিজেপির। কখনও নকুল দানা, কখনও পাচনের দাওয়াই-বরাবরই নির্বাচনের আগে বিতর্কিত মন্তব্য করে শিরোনামে থাকেন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। এবার তাঁর পথ অনুসরণ করে বিরোধীদের করলার জুস খাওয়ানোর পাঠ দিচ্ছেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষও। সম্প্রতি কোচবিহারের তুফানগঞ্জের একটি সভা থেকে কর্মীদের এই বার্তা দেন তিনি। মঙ্গলবারই কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। প্রচারে এসে প্রকাশ্য সভায় তিনি বলেন, ”কেন্দ্রীয় বাহিনী নির্বাচনের পর থাকবে না, আমরা থাকব সারা বছর। ভোটটা জোড়া ফুলেই দেবেন।”  ইতিমধ্যেই অনুব্রত মণ্ডল ও রবীন্দ্রনাথ ঘোষের মন্তব্যে বিতর্ক দানা বেঁধেছে। তবে এবারের নির্বাচনে এই তালিকায় নতুন সংযোজন ফিরহাদ হাকিমের নামও। কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে তাঁকে এবার বিতর্কিত মন্তব্য করতে শোনা গিয়েছে। 
একটি সভায় ফিরহাদ দাবি করেন, রুটমার্চের নামে কাঁধে বন্দুক নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দিয়ে আসছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। বিজেপির আরও অভিযোগ, তৃণমূলের এই চার নেতা ভোটারদের হুমকি দিচ্ছেন।  ফলে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি এদিন বিজেপির তরফে একটি স্মারকলিপিও জমা দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, কেন্দ্রীয় বাহিনী প্রয়োজনে মানুষের বাড়িতে ঢুকে তাঁদের আশ্বস্ত করতে পারে,  তারও ব্যবস্থা করতে হবে। বিজেপির তরফে  এদিন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের সঙ্গে দেখা করেন জয়প্রকাশ মজুমদার ,রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।