প্রথম পাতা

অর্জুনের পর তৃণমূলের আরও তিন হেভিওয়েট নেতাকে দলে টানতে মরিয়া বিজেপি

দেবাশিস দাস

একসঙ্গে এই রাজ্যের ৪২ টি লোকসভা আসনের প্রার্থী ঘোষণা না করে দফায় দফায় প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে পারে বিজেপি। প্রথমে উত্তরবঙ্গ তারপর পর্যায়ক্রমে যেভাবে ভোট রয়েছে সেভাবে দু তিন দফায় এ রাজ্যের জন্য প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে পারে। ভাটপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিংকে দলে যোগদান করানোর সময়ে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মুকুল রায় বলেছিলেন এখন ট্রেলার দেখছেন সিনেমা এখন অনেক বাকি। তিনি কথার কথা বলেছিলেন নাকি বাস্তবে এর কোন ভিত্তি আছে তাই নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। তবে আপাতত তৃণমূলের তিন নেতাকে টার্গেট করে এগোচ্ছে বিজেপি। যতদূর জানা গিয়েছে, কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে বিজেপি দলে এনে প্রার্থী করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। উত্তরবঙ্গের কোনও আসন থেকে তাঁকে প্রার্থী করতে চায় বিজেপি। একইভাবে বিধাননগর পুরসভার প্রাক্তন মেয়র সব্যসাচী চক্রবর্তীকেও দলে টানার জন্য বিজেপি মরিয়া হয়ে উঠেছে। যদিও এই দুই তৃণমূল নেতা তাঁদের ঘনিষ্ঠ মহলে বলেছেন এসব গুজব রটানো হচ্ছে বাস্তবে এর কোনও ভিত্তি নেই। সব্যসাচী তৃণমূলে অতীতেও ছিলেন, বর্তমানেও আছেন এবং ভবিষ্যতেও থাকলে। কিন্তু বারাসত লোকসভা আসনে তাকে পাওয়ার জন্য বিজেপি মরিয়া হয়ে উঠেছে। যদিও সব্যসাচী এখনও তৃণমুলেই আছেন এবং তৃণমূলে থেকেই কাজ করতে চান বলে ঘনিষ্ট মহলে জানিয়েছেন। তবে বিজেপির শীর্ষ নেতারা হাল ছাড়তে রাজি নন। উত্তর ২৪ পরগনা এবং কলকাতার ভোট অনেকটা পরে রয়েছে সে কারণে এ ধরণের চাপ বজায় রেখে তৃণমূল কংগ্রেসকে বিভ্রান্ত করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায়ও বিজেপির নিশানায় রয়েছেন। সেক্ষেত্রে কৃষ্ণনগর আসনটি নিয়ে বিজেপি ভাবনা চিন্তা শুরু করেছে। যদি শেষ পর্যন্ত শুভ্রাংশু তৃণমুলেই থেকে যান তাহলে কৃষ্ণনগরের জন সত্যব্রত মুখোপাধ্যায়ের (জুলু বাবু) ছেলের নাম ভাবছে বিজেপি। যদিও এই তিন তৃণমূল নেতা তাদের ঘনিষ্ট মহলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তারা তৃণমূলেই আছেন। আসলে সংবাদমাধ্যমের এই খবরকে পরিবেশন করে তাদের প্রতি অবিশ্বাসের বাতারণ তৈরির চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে আগামী দিনগুলিতে এই তিন তৃণমূল নেতাকে বিজেপি তাদের দিকে টানতে পারে কিনা এখন সেটাই দেখার।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।