দেশ প্রথম পাতা বিনোদন

অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, শুরু হয়েছে তদন্ত !

আবার একবার মৃত্যুর হিমশীতল স্পর্শ ছুঁয়ে গেল বি-টাউনকে। ঝুলন্ত অবস্থায় মিলল অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের দেহ। রবিবার সকালে মুম্বইয়ের বান্দ্রায় তাঁর নিজের ফ্ল্যাটে গলায় ফাঁস লাগানো দেহ দেখে বাড়ির পরিচারিকা ফোন করে পুলিসে খবর দেন। তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলেই প্রাথমিক ভাবে অনুমান পুলিশের।
তবে ঠিক কী কারণে তিনি আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন, তা নিয়ে নানা জল্পনা উঠে আসছে। শোনা যাচ্ছে, বেশ কিছু ছবি মুখ থুবড়ে পড়ায় কিছুদিন ধরেই অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। তবে এ ব্যাপারে নিশ্চিতভাবে কিছু জানা যায়নি। ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কখনও কারও সঙ্গেই কথা বলতেন না সুশান্ত। জানিয়েছেন তাঁর পরিচিতরাই।
ব্যক্তিগত কিছু সম্পর্ক থাকলেও আত্মহত্যার কারণ এখনও ধন্দ্বে পুলিশ। প্রসঙ্গত, সপ্তাহ খানেক আগেই সুশান্ত সিংয়ের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ান মুম্বইয়ের মালাডের একটি বহুতল থেকে ঝাঁপ দেন। সে খবরে ভেঙে পড়েছিলেন সুশান্ত। তবে কী কারণে সুশান্ত নিজেকে শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। এখনও পর্যন্ত সুশান্তের ফ্ল্যাট থেকে কোনও সুইসাইড নোট উদ্ধার হয়নি বলেই জানাচ্ছে পুলিস।
১৯৮৬ সালের ২১ জানুয়ারি পটনায় জন্ম সুশান্ত সিংহ রাজপুতের। পরে দিল্লিতে চলে আসে তাঁর পরিবার। দিল্লি কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হন। কিন্তু সেইসময় থেকেই অভিনয়ের প্রতি ঝোঁক বাড়ে এবং থিয়েটারের প্রতি আকৃষ্ট হন তিনি। সম্ভবত, পাকাপাকিভাবে অভিনয়ের জগতে আসার জন্যই নাচও শিখতে শুরু করেন।

অভিনয়ের তাগিদে শেষ পর্যন্ত পড়াশোনা শেষ না করেই মুম্বইয়ে চলে আসেন সুশান্ত। সেখানে ২০০৮ সালে প্রথম একতা কপূরের প্রযোজনায় ‘কিস দেশ মে হ্যায় মেরা দিল’ সিরিয়ালে অভিনয় করার সুযোগ পান। যদিও সেখানে তাঁর অভিনয়ের সুযোগ ছিল সীমিত।
তবে সেখান থেকেই একতা কপূরের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়ে যায় তাঁর। সেই সূত্রেই ২০০৯ সালে ‘পবিত্র রিস্তা’ সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান তিনি। তার পর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। সিরিয়ালে অভিনয় করতে করতেই ‘জরা নাচকে দিখা’ এবং ‘ঝলক দিখলা যা’-র মতো রিয়্যালিটি শোয়ে অংশগ্রহণ করেন সুশান্ত সিং রাজপুত।

আর এই সময়টাই ছিল সুশান্তর জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। টিভি সিরিয়াল থেকে বলিউডের দিকে ঝুঁকতে শুরু করেন সুশান্ত। সেই মতো ‘পবিত্র রিস্তা’র কাজ ছেড়ে দিয়ে বিদেশে চলে যান সিনেমা নিয়ে পড়াশোনা করতে। সেখান থেকে ফিরে অভিষেক কপূরের ‘কাই পো চে’ ছবির জন্য অডিশন দেন।
এর পর একে একে ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’, ‘পিকে’, ‘ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী’-র মতো ছবিতে অভিনয় করেন সুশান্ত। ভারতীয় ক্রিকেটার মহেন্দ্র সিংহ ধোনির চরিত্রে তাঁর বায়োপিক ‘এমএস ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’-তে তাঁর অভিনয় দর্শকদের নজর কাড়ে। সমালোচকদেরও প্রশংসা কুড়োয়। ‘কেদারনাথ’ ছবিতে তাঁরই বিপরীতে অভিনয়ে হাতেখড়ি হয় সারা আলি খানের।

রবিবার সকালে গলায় ফাঁস লাগিয়ে নিজের ফ্ল্যাটেই আত্মহত্যা করেন সুশান্ত সিং রাজপুত। অভিনেতার পরিচারিকাই পুলিশে ফোন করে এই খবর দেন। এরপর পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করেন। সূত্রের খবর, বেশকিছুদিন অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কখনও কারও সঙ্গেই কথা বলতেন না তিনি। জানাচ্ছেন তাঁর কাছের পরিচিতরাই। ব্যক্তিগত বেশ কিছু সম্পর্ক থাকলেও তাঁর জেরে আত্মহত্যা কিনা তা এখনও জানা যায়নি। কিছুদিন আগেই মিলেছিল সুশান্ত সিংয়ের প্রাক্তন ম্যানেজারের আত্মহত্যার খবর। গত সোমবার মুম্বইয়ের মালাডের একটি বহুতল থেকে ঝাঁপ দেন দিশা সালিয়ান। যে খবরে ভেঙে পড়েছিলেন সুশান্ত। তবে কী কারণে সুশান্ত নিজেকে শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। এখনও পর্যন্ত সুশান্তের ফ্ল্যাট থেকে কোনও সুইসাইড নোট উদ্ধার হয়নি বলেই জানাচ্ছে পুলিশ। দিশার মৃত্যুর সঙ্গে এই আত্মহত্যার কোনও যোগ রয়েছে কি, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মাত্র চারদিন আগেই আত্মহত্যা করেছিলেন দিশা। সেইসঙ্গে দিশার বাবা মা ও প্রেমিককেও জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। শেষবার ‘ছিছোড়ে’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল সুশান্তকে। এছাড়াও ‘কেদরনাথ’, ‘এম.এস. ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’, ‘ডিটেকটিভ ব্যোমকেশ বক্সী’, ‘পিকে’, ‘কাই পো চে’ সহ একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন সুশান্ত। তাঁর মৃত্যুতে বলিউডে শোকের ছায়া।

 

Spread the love