কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

সামনের লড়াই কঠিন! মনোমালিন্য মেটাতে দীনেশ- অর্জুনকে নবান্নে ডেকে পাঠালেন খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিনিধি: তৃণমূলে ভাঙন ধরাতে মরিয়া বিজেপি। অনেক কথা হয়েছে। এবার কাজ। শেষ পর্যন্ত মুকুল রায় আদৌ কতটা সফল হতে পারবেন তৃণমূল ভাঙানোয়, তা সময়ই বলবে। মুকুল দাবি করেছিলেন, নির্বাচন ঘোষণা হয়ে গেলে পুলিশ-প্রশাসন চলে যাবে কমিশনের অধীনে। তখন মিথ্যে মামলা দেওয়া যাবে না। ঘোষণা হয়ে গিয়েছে ভোটের দিনক্ষণ। এবার দেখা যাক কতটা সফল হন মুকুল।

এদিকে, ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃতীয়বারের জন্য শাসকদলের প্রার্থী হতে চলেছেন সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী।আর তাতেই ব্যারাকপুরে গুঞ্জন চলছিল লোকসভা ভোটে প্রার্থী না করা হলে অর্জুন সিং চলে যেতে পারেন বিজেপিতে। সূত্রের খবর, সেই অর্জুন সিংকেই এবার নবান্নে ডেকে পাঠালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে নবান্নে গেলেন দীনেশ ত্রিবেদীও। সূত্রের খবর, বারাকপুর কেন্দ্রে দীনেশ ত্রিবেদীকে ফের সাংসদ করতে চলেছে তৃণমূল।এই খবর আগেই ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিংকে কার্যত জানিয়ে দিয়েছিলেন তৃণমূলের শীর্ষনেতারা। কিন্তু ওই ব্যারাকপুর কেন্দ্র থেকেই  সাংসদ হতে চান অর্জুন সিং।জল্পনা, বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী না করা হলে বিজেপির টিকিটে দাঁড়াতে পারেন অর্জুন সিং। ব্যারাকপুরে দীনেশকেই তৃণমূল প্রার্থী করছে বলে বিশেষ সূত্রে জানা গিয়েছে। সোমবার দলের দ্বন্দ্ব মেটাতে অর্জুন সিং ও দীনেশ ত্রিবেদীকে নবান্নে ডেকে পাঠালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জট কাটাতে দুজনের সঙ্গে কথা বলেন তৃণমূল নেত্রী। জানা গিয়েছে, দীনেশ ত্রিবেদী আর অর্জুন সিংহের মধ্যে সাংসদ হওয়া নিয়ে যে মনোমালিন্য চলছে তা মেটাতেই আসরে নেমেছে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।