জেলা প্রথম পাতা

সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা করালেই বাড়িতে পৌছে যাবে মুখ্যমন্ত্রীর চিঠি, বিজ্ঞপ্তি নবান্নের

নিজস্ব প্রতিনিধি: সামনেই নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচন কমিশন ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছে যে নির্ধারিত সময়েই হবে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচন। এমন সময়ে সব রাজনৈতিক দলেরই চাই জনসংযোগ। তাই সময় নষ্ট না করে জনসংযোগে যোগ দিতে চিঠিকেই হাতিয়ার করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।ভোটের আগে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যাবে মুখ্যমন্ত্রীর চিঠি। রোগীর বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চিঠি। নবান্ন সূত্রে খবর, সরকারি হাসপাতালে যাঁরা বিনা পয়সায় চিকিৎসা করিয়েছেন, তাঁদের সবার বাড়িতে এবার পৌঁছে যাবে মুখ্যমন্ত্রীর লেখা সেই চিঠি।১ মার্চ তারিখে নবান্ন থেকে একটি নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে সমস্ত সরকারি হাসপাতালের জন্য। যে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ১ মার্চ ২০১৮ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ পর্যন্ত যে হাসপাতালে যাঁরা চিকিৎসা পরিষেবা নিয়েছেন, তাঁদের নাম, ঠিকানা-সহ একটি তালিকা তৈরি দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের।

নবান্ন থেকে একটি চিঠি পাঠানো হবে হাসপাতালগুলিতে। মুখ্যমন্ত্রীর সই করা চিঠি। সেই ঠিকানা ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চিঠি পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে হাসপাতালগুলিকে। এবং এই খরচও বহন করবে হাসপাতাল কতৃপক্ষ।রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজ, জেলা হাসপাতাল, মহকুমা হাসপাতাল, গ্রামীণ হাসপাতাল-সহ রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ দফতরের আওতায় থাকা সমস্ত স্বাস্থ্য পরিষেবাকেন্দ্রে এই চিঠি পৌঁছে যাচ্ছে। নবান্ন থেকে জারি হওয়া নির্দেশিকায় এই চিঠি পৌঁছে দেওয়ার কাজকে ‘মোস্ট আর্জেন্ট’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। সব মিলিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের কাছে পৌঁছবে মুখ্যমন্ত্রীর এই চিঠি।আরও বলা হয়েছে, বাই পোস্ট চিঠিটি পাঠাতে হবে। অথবা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে কাউকে নিজে গিয়ে রোগীর বাড়ির লোকেদের হাতে সেই চিঠি তুলে দিয়ে আসতে হবে। চিঠি পাঠানোর সমস্ত খরচ বহন করবে সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। চিঠি পাঠানোর পর, কতজনকে চিঠি দেওয়া হল, সেই হিসেবে জানাতে হবে স্বাস্থ্য দফতরে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।