জেলা প্রথম পাতা

সরকারি দপ্তরের সামনে হোডিং নিয়ে বিতর্ক

নিজস্ব প্রতিনিধি : লোকসভা ভোট ঘোষণার পরেই সারা দেশে চালু হয়ে গিয়েছে আদর্শ আচরণ বিধি।সমস্ত সরকারি জায়গা, অফিস-কাছারি থেকে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের ছবি সরিয়ে ফেলা বা ঢেকে দেওয়া হচ্ছে।অথচ নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ সত্বেও পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এগরা-১ এবং ২ বিডিও অফিসের সামনে থেকে এখনও সরানো হয়নি সরকারি হোর্ডিং ও ব্যানার।অভিযোগ দু’টি বিডিও অফিসের সামনেই কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে সরকারি হোর্ডিং।তা সত্বেও ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার’ লেখা’টি স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।এগরা-১ ও ২ ব্লক অফিসে ঢোকার দরজার পাশে দেওয়ালে রাজ্যের বিভিন্ন প্রকল্পের ছবি টাঙানো রয়েছে।আবার বিডিও অফিসের দেওয়ালে রাজ্য সরকারের একাধিক প্রকল্পের কথা ছবি-সহ লেখা হোর্ডিং রয়েছে।রবিবার লোকসভা ভোট ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।তার পরেই জেলার বিভিন্ন প্রশাসনিক দফতরে চিঠি পাঠিয়ে সরকারি প্রকল্পের কথা লেখা হোর্ডিং ও রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের ছবি সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন জেলাশাসক পার্থ ঘোষ।প্রশাসন সূত্রের খবর, লোকসভা ভোট ঘোষণার পরেই চালু হয়ে গিয়েছে আদর্শ আচরণ বিধি।জেলা প্রশাসনের তরফে সমস্ত অফিস-কাছারি, সরকারি জায়গা থেকে রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের ছবি-সহ সরকারি প্রকল্পের কথা লেখা হোর্ডিং সরিয়ে ফেলতে বলা হয়েছিল।ব্লক প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, “জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়, সেই সব নির্দেশ মানা হয়েছে।” তারপরেও কেন বিডিও অফিসের ঢোকার দরজার পাশে দেওয়ালে এবং ব্লক অফিসের সামনে রাজ্য সরকারের একাধিক প্রকল্পের হোর্ডিং টাঙানো রয়েছে? প্রশ্ন তুলছেন বিরোধীরা।জেলা বিজেপি সভাপতি তপন মাইতি বলেন, “ভোট ঘোষণার পরেও সরকারি প্রকল্পের কথা লেখা হোর্ডিং, সরকারি  অফিস গুলিতে মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেখা যাচ্ছে।বিডিও অফিস তো সরকারি জায়গা।নির্বাচন কমিশনের অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।” পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসক পার্থ ঘোষ বলেন, “বিষয়টি আমার জানা নেই।তবে আদর্শ আচরণ বিধি পরিদর্শক দলকে ব্লক অফিসে পাঠিয়ে বিস্তারিত খোঁজ নেব।”

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।