জেলা প্রথম পাতা

সব মিথ্যার অবসান ঘটাবো আমি! বিজেপিতে নিজেকে প্রমাণ করতে মরিয়া চেষ্টা ভারতীর

নিজস্ব প্রতিনিধি: জঙ্গলমহলের অপারেশন শুরু করলেন বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ। আগে তিনি যে জঙ্গলমহলে পুলিশ সুপারের দায়িত্বে ছিলেন আজ সেইখানে তিনি গিয়েছেন বিজেপি নেত্রী হিসাবে। শনিবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা আদালতে হাজিরা দিতে এসে ভারতী বলেন, “সব মিথ্যার অবসান ঘটাবো আমি। আমার বিরূদ্ধে বহু জায়গায় তৃণমূল মিথ্যা মামলা করেছে। আর সেখানেই তৃণমূলের সবথেকে বেশি ভোটে পরাজয়।” আদালতে হাজিরার পর তিনি জানান, “আমার মামলাগুলো সুপ্রিম কোর্টে রয়েছে। সাব জুডিসিয়াল মেটার নিয়ে আমি কোন কথা বলি না,  আর বলব না। তবে একটা কথা পরিষ্কার বলছি, আমার বিরুদ্ধে যেখানে যেখানে মামলা হয়েছে, সেখানে সেখানে হারবে তৃণমূল।” ভারতীয আরও বলেন, “আমি ৬ বছর জঙ্গলমহলে আমার প্রাণ দিয়ে রিস্ক নিয়ে কাজ করেছি। ২৩ বছরের চাকরিতে কোনও অভিযোগ উঠেনি।”দাসপুরে চন্দন মাঝির দায়ের করা প্রতারণায় মামলায় এদিন পশ্চিম মেদিনীপুর  জেলা আদালতে হাজির হন প্রাক্তন আইপিএস অফিসার। আদালতের কাছে তিনি দাবি করেন, লাই ডিটেক্টরের সামনে ধৃতদের ও সিআইডিকে মুখোমুখি বসালে, সব প্রশ্নের সত্যি উত্তর সামনে চলে আসবে। এরপরই প্রশাসনের উদ্দেশে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে তিনি হুঁশিয়ারি দেন, “যেখানে যেখানে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা হয়েছে। ঠিক সেখানেই ধাক্কা খাবে তৃণমূল।’ তিনি আরও দাবি করেন, তৃণমূল কংগ্রেসের “মিথ্যা’ মামলা দায়েরের “প্রবণতা’র জন্যই পঞ্চায়েত নির্বাচনে পশ্চিম মেদিনীপুরে বিজেপি ভালো ফল করেছে।

প্রসঙ্গত,৫ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে মুকুল রায় এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয়ের উপস্থিতিতে পদ্ম শিবিরে যোগ দেন ভারতী। কিন্তু ভারতী ঘোষের বিজেপিতে যোগদানের ঘটনায়  ক্ষুব্ধ হন দলেরই একাংশ নেতা-কর্মী। তাঁদের অভিযোগ, কিছুদিন আগেও জঙ্গলমহলে দলীয় নেতা, কর্মীদের বেছে বেছে নিগ্রহ করেছেন ভারতী ঘোষ। মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছেন বহু বিজেপি কর্মীকে।তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার এক ম্যারাথন বৈঠকে বিজেপি দিলীপ ঘোষের কাছে নিজের জবাব পেশ করেন ভারতী ঘোষ। সাফাই দেন, বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে তিনি যা করেছেন সব রাজ্য সরকারের নির্দেশে। নবান্নের নির্দেশেই বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে “মিথ্যা’ মামলা করেছেন তিনি। 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।