কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

সব্যসাচীর বাড়িতে দোলা সেন! এবার কি দলবদলের খেলা শুরু হবে?

নিজস্ব প্রতিনিধি : এবার কি দলবদলের খেলা শুরু হবে? কারণ আজ রবিবার ভোট ঘোষণা হতে চলেছে। মুকুল রায় দাবি করেছিলেন, ভোট ঘোষণা হলেই তৃণমূলের বেশ কয়েকজন বিজেপিতে আসবে। তাঁর এই দাবি সঠিক হয় কি না এটাই এখন দেখার বিষয়। কারণ ভোট ঘোষণার আগে তৃণমূল থেকে কেউ বিজেপিতে এলে সেই নেতাকে পুলিশ দিয়ে সমস্যা ফেলানো হবে। ফলে ভোটের আগে কেউ বিজেপিতে আসবে না। এমনটাই দাবি করেছিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। এদিকে রবিবার সব্যসাচী দত্তের বাড়িতে যান তৃণমূলের দোলা সেন। আজ ফিরহাদ হাকিম বিধাননগরের কাউন্সিলারদের নিয়ে বৈঠক করবেন তার আগে সব্যসাচীর মন বুঝতে তাঁর বাড়িতে গেলেন দোলা সেন। এদিকে বিধাননগরের মেয়র তথা রাজারহাটের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত যে মুকুল রায়ের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন, বাংলা রাজনীতিতে তা এক প্রকার ‘ওপেন সিক্রেট’। কিন্তু তৃণমূল ও বিজেপি দুই শিবিরেরই খবর, ভোট ঘোষণা হতেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় শাসক দলের কয়েকজন নেতা যোগ দিতে পারে বিজেপি। উত্তর চব্বিশ পরগণার শিল্পাঞ্চলের এক বাহুবলী তৃণমূল নেতাও যোগ দিতে পারেন গেরুয়া শিবিরে। 

সূত্রের মতে, দলবদলের এই পর্বে চমকে যাওয়ার মতো ঘটনাও নাকি ঘটে যেতে পারে!

বাংলায় তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বিরোধী দল ভাঙিয়ে আনার ব্যাপারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেই সময় কার অন্যতম সৈনিক মুকুল রায়ের জুড়ি মেলা ভার ছিল। কখনও বিধানসভা ভোটে, কখনও বা রাজ্যসভা নির্বাচনের সময় এ ব্যাপারে যাবতীয় গুটি সাজাতেন তিনিই। তা সে কংগ্রেসের বিধায়ককে তৃণমূলে আনা হোক বা কোনও বাম বিধায়ককে। এ বার, লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূল ভাঙানোর ব্যাপারেও সেই নেপথ্য নায়ক মুকুল রায়ই। সূত্রের খবর, তৃণমূলের বেশ কিছু মাঝারি ও জেলাস্তরের নেতার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেছেন মুকুলবাবু। লোকসভা ভোটের নির্ঘণ্ট জাতীয় নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করা পর মুকুল মাজিক শুরু হতে পারে। হতে পারে দলবদলের পালা। এ জন্য শনিবার রাতেই দিল্লি পৌঁছেছেন মুকুলবাবু। সোমবার দিল্লিতে বাংলায় বিজেপির প্রাথী কারা হবেন তা নিয়ে অমিত শাহ বৈঠক করবেন মুকুল রায়দের সঙ্গে।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।