প্রথম পাতা বিনোদন

মোদীর বায়োপিক দেখাতে গিয়ে জ্বালানো হল আস্ত একটি ট্রেন

নিজস্ব প্রতিনিধি :  গোধরা কাণ্ডের কথা মনে আছে? মনে পড়ে সেই ‘জ্বলন্ত ট্রেনের দৃশ্য’টা? প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিক ছবিতে তুলে ধরা হবে ২০০২ সালে গোধরা কাণ্ডের ঘটনা। আর সেই ঘটনাই দৃশ্যায়িত করার জন্য জ্বালিয়ে দেওয়া হল আস্ত একটা ট্রেন।

শুনে চমকে গেলেন? তবে এমনটাই ঘটেছে ছবির শ্যুটিংয়ে। সিনেমার দৃশ্য বাস্তবসম্মত করে তুলতে শ্যুটিংয়ের সময় পরিচালককে অনেক কিছুই ঘটাতে হয়। ট্রেনে আগুন লাগানোর ঘটনাও তেমনই এক উদাহরণ। 

প্রসঙ্গত, ২০০২ সালে ২৭ ফেব্রুয়ারি গুজরাটের গোধরা স্টেশনে সবরমতী এক্সপ্রেসের আগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৫৯ জন কর সেবকের মৃত্যুর খবর মেলে। এরপর হিংসা ছড়িয়ে পড়ে গুজরাটের বিস্তর্ণ এলাকায়। সেই চিত্রই ফের একবার উঠে আসবে নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিকে। সেই চিত্রায়ণের জন্যই আস্ত একটা ট্রেনে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, বাস্তবে সরবমতী এক্সপ্রেসে এই আগুন লাগার ঘটনা গুজরাতের গোধরা স্টেশনে ঘটলেও, ছবির শ্যুটিং কিন্তু হয়েছে মুম্বইয়ে।

জানা যাচ্ছে এই দৃশ্যটির শ্যুটিংয়ের জন্য পশ্চিম রেলওয়ের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। পশ্চিম রেলওয়ের জন সংযোগ আধিকারিক খেমরাজ মীনা এবিষয়ে জানান, ”গোধরায় ট্রেনের অগ্নিকাণ্ডের দৃশ্যটি বিশ্বমৈত্রী রেলওয়ে স্টেশনের এক কোণায় শ্যুটিং হয়েছে। তার জন্য কোনও ট্রেন বা যাত্রীদের কোনও সমস্য হয়নি। শ্যুটিংয়ের জন্য একটা মগ ড্রিল বগি ব্যবহার করা হয়েছিল, যা এক্কেবারেই ব্যবহার করা হয় না।”

এদিকে পশ্চিয় রেলওয়ের প্রধান জন সংযোগ আধিকারিক রবীন্দ্র ভাকর অবশ্য জানিয়েছেন, ”সিনেমার শ্যুটিংয়ের জন্য যখন অনুমতি চাওয়া হয়েছিল, তখন অবশ্য গোধরার ঘটনার দৃশ্যায়িত করা হবে এমনটা জানানো হয়নি, শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর রেলস্টেশনে চা বিক্রির দৃশ্যের শ্যুটিংয়ের কথাই জানানো হয়েছিল। তবে তাঁদের শ্যুটিংয়ের জন্য যদি রেলের সম্মত্তির কোনও ক্ষয়-ক্ষতি হয়, তাহলে তার ক্ষতিপূরণ সিনেমার প্রযোজনা সংস্থার কাছেই চাওয়া হবে। ”

প্রসঙ্গত, নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিকে বিবেক ওবেরয়কে অভিনয় করতে দেখা যাবে। 

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।