Uncategorized

মালদার প্রার্থীপদ ঘোষণার আগেই বিতর্ক শুরু বিজেপি’র অন্দরে

নিজস্ব প্রতিনিধি— এখনও বিজেপির প্রার্থী ঘোষণা হয়নি। তার আগে জোরদার বিতর্ক শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ইংরেজবাজার পুরসভার এক কাউন্সিলর দাবি করেছেন, বিজেপি’র পক্ষ থেকে তাঁকে দক্ষিণ মালদায় প্রার্থী হওয়ার বার্তা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি সেই বার্তায় কোনও গুরুত্ব দেননি। পাশাপাশি রাজনৈতিক মহলের আলোচনায় চলে এসেছেন প্রাক্তন মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরিও। বিজেপি না কি তাঁকেও প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। এনিয়ে কৃষ্ণেন্দুবাবুর কোনও প্রতিক্রিয়া না পাওয়া গেলেও বিজেপির জেলা সভাপতি জানিয়েছেন, বাজারে এখন খুচরো পয়সা বেড়ে গেছে। তারা এখন অন্য জায়গায় যেতে চাইছে। এসব ভোটের বাজার গরম করার চেষ্টা।

উত্তর মালদায় মৌসম কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যাওয়ায় এই আসনটি ধরে রাখতে মরিয়া কংগ্রেস। কিন্তু কে এই আসনে কংগ্রেসের প্রার্থী হবে তা এখন জানা যায়নি। দীপা দাশমুন্সিও এই আসনে দাঁড়াতে চেয়েছিলেন। আবার ঈশা খান চৌধুরীও দৌড়ে রয়েছেন। যদিও উত্তর এবং দক্ষিণ মালদায় বিজেপি এখনও প্রার্থীপদ ঘোষণা করেনি। তবে কি দুই কেন্দ্রে উপযুক্ত প্রার্থী খুঁজে পাচ্ছে না গেরুয়া শিবির? উত্তর মালদা কেন্দ্রে সদ্য দলে যোগ দেওয়া বাম বিধায়ক খগেন মুর্মুকে নিয়ে বহু চর্চা চলেছে। এখনও চলছে। এবার সেই চর্চা দিক পালটে চলে গেল দক্ষিণে।

দিল্লিতে বিজেপি-তে যোগ দেওয়ার পরেই উত্তর মালদা কেন্দ্রে খগেন মুর্মুকে নিয়ে চর্চা শুরু হয় জেলায়। তাহলে কি ওই কেন্দ্রে মৌসম নুর ও ইশা খান চৌধুরির বিরুদ্ধে বিজেপি-র সৈনিক খগেন মুর্মু? এনিয়ে এখনও জেলাজুড়ে প্রবল চর্চা। যদিও বিজেপি-র জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, খগেনবাবুকে প্রার্থী হিসেবে তাঁরা মানছেন না। তাঁকে প্রার্থী করা হলে দলে বিদ্রোহ দেখা দেবে। সেকথা দলের শীর্ষনেতৃত্বকে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু তাঁর এই বক্তব্যের পরেও খগেনবাবুকে নিয়ে আলোচনা বন্ধ হয়নি। যদিও খগেনবাবু এখনও দিল্লিতে।

 ইংরেজবাজার পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর প্রসেনজিৎ দাস দাবি করেন, “আমার কাছে দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়ার জন্য বিজেপি-র পক্ষ থেকে প্রস্তাব এসেছিল। কিন্তু আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক। দিদির আদর্শে আমরা চলি। আমরা তৃণমূলে আছি, থাকবও।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।