জেলা প্রথম পাতা

ভোটের ঘন্টা বাজা শুধু সময়ের অপেক্ষা, সময় নষ্ট না করে তাই এখন থেকেই প্রচারে নেমে পড়েছে শাসক দলের নেতা-নেত্রীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি: ভোটের ঘন্টা বাজার সময় হয়ে এসেছে এখন শুধুই অপেক্ষা! কিন্তু ঘন্টা কখন বাজবে তার জন্য সময়ের অপেক্ষা না করে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছে শাসক দলের নেতা নেত্রীরা। রীতিমতো ফ্লেক্সে তৃণমূলের সুপ্রিমো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি ছেপে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জয় যুক্ত করার আহবান জানানো শুরু করেছে। এদিন শনিবার ঝাড়্গ্রাম জেলা তৃণমূলের পক্ষ থেকে নয়াগ্রাম থেকে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু করল তৃণমূল। এদিন নয়াগ্রাম ব্লকের খড়িকামাথানীতে এক মিছিল ও নেতাকর্মীদের নিয়ে মিটিং  করেন শাসক দলের নেতাকর্মীরা। তাতে উপস্থিত ছিলেন ঝাড়্গ্রামের বিধায়ক তথা ঝাড়্গ্রাম জেলা তৃণমূলের কোর কমিটির চেয়ারম্যান সুকুমার হাঁসদা, ঝাড়্গ্রাম জেলা পরিষদের সভাধিপতি মাধবী বিশ্বাস, জেলা কোর কমিটির সদস্য প্রষুন ষড়ঙ্গী, জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ উজ্জ্বল দত্ত, মহিলা নেত্রী সঞ্চিতা ঘোষ সহ একাধিক নেতা নেত্রীরা। উল্লেখ্য গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে জঙ্গলমহলের ঝাড়্গ্রাম জেলায় বিজেপি উত্থান নিয়ে ভাঁজ ফেলেছে শাসক শিবিরে। তাই এবারে আগেভাগে কোমর বেঁধে ময়দানে নামছে শাসক দল। যাতে তৃণমূলের ভোট বাক্সে কোনও ভাবে বিজেপি থাবা বসাতে না পারে তার জন্য একাধিক পন্থা অবলম্বন করেছে শাসক দলের নেতা কর্মীরা। ইতিমধ্যে পাড়া বৈঠক,  ডাটা কালেকশন, মিছিল, মিটিংএর মাধ্যমে উন্নয়ন মুলক কাজ গুলিকে তুলে ধরছেন জনতার সামনে। এছাড়াও জেলার বিভিন্ন ব্লকে  দেওয়াল লিখন শুরু করে ভোট ময়দানে নেমে পড়েছে শাসক শিবির।  কিন্তু আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিও পাখির চোখ করে দেখছে ঝাড়্গ্রাম জেলার লোকসভা কেন্দ্রটিকে। রাজনৈতিক লড়াইয়ে কেউ কাউকে একইঞ্চিও জমি ছাড়তে নারাজ। তাই শাসক শিবির আগাম বুঝে আগেভাগে ভোট প্রচার শুরু করল। এমনকি চলতি মাসেই রয়েছে ঝাড়্গ্রাম জেলা ছাত্র যুব সন্মেলন তার প্রস্তুতি ও জোরকদমে চালাচ্ছে তৃণমূলের ছাত্র যুবর নেতা কর্মীরা। আগামী চৌদ্দ মার্চ রয়েছে এই সন্মেলন।এবিষয়ে ঝাড়্গ্রাম জেলা তৃণমূলের কোর কমিটির চেয়ারম্যান সুকুমার হাঁসদা বলেন, “লোকসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা কবে হবে তার অপেক্ষা করে থাকলে আমাদের চলবে না। আমরা সারা বছর মানুষের জন্য কাজ করি। সবাইকে নিয়ে মিলেমিশে থাকার চেষ্টা করি। আমাদের এই মিছিল, মিটিংএ প্রচুর পরিমানে মানুষজন এসেছিলেন। আমাদের পাশেই রয়েছে জনগণ। আমি সাধারণ মানুষজদেরকে বার্তা দিয়েছি যাতে তারা কারো প্ররোচনায় বা পা না দেন। “

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।