আন্তর্জাতিক প্রথম পাতা

ভারতে হামলা করতে জইশ’কে ব্যবহার করে পাক গোয়েন্দারা, বিস্ফোরক মন্তব্য মুশারফকে

নিজস্ব প্রতিনিধি— বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশারফ। তাঁর এই মন্তব্যে ফের নতুন করে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। এতদিন ভারত যে কথা বলে আসছিল, এবার সেই কথারই সুর শোনা গেল প্রাক্তন পাক প্রেসিডেন্টের মন্তব্যে। সেই সঙ্গে তিনি প্রশংসাও করেছেন বর্তমান পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের। এবার দেখে নেওয়া যাক, কি বলেছেন প্রাক্তন পাক প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেছেন, ভারতে জঙ্গি কার্যকলাপ চালাতে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনকে ব্যবহার করছে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই (ইন্টার সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্স)। একাধিক বার সেকথা বলে এসেছে ভারত। কিন্তু, পাকিস্তান সেকথায় কোনও আমল দেয়নি। এবার অবশ্য খোদ প্রাক্তন পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশারফ সেকথা স্বীকার করে নিলেন। তবে, নিজে যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন এনিয়ে অবশ্য ভারতের অভিযোগ মানেননি পাকিস্তানের এই প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট।

পারভেজ মুশারফ ক্ষমতায় থাকাকালীন জইশ-ই-মহম্মদ বা তার নেতৃত্বের বিরুদ্ধে কেন কোনও ব্যবস্থা নেননি? এক টেলিফোনিক সাক্ষাৎকারে মুশারফকে এই প্রশ্ন করেছিলেন পাকিস্তানের সাংবাদিক নাদিম মালিক (তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে সাক্ষাৎকারের ২ মিনিটের একটি ক্লিপ রয়েছে)। এর উত্তরে প্রাক্তন পাক প্রেসিডেন্ট বলেন, “ভারতে বোমাবাজি চালাতে জইশকে ব্যবহার করছিল পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা। ওই সময়টাই (তিনি ক্ষমতায় থাকাকালীন) আলাদা ছিল। ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের মধ্যে যেমন কর্ম তেমন ফল রীতিতে চলতেন গোয়েন্দারা। তখন জইশের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আমিও জোর করিনি।”

শুধু তাই নয়, জইশ-ই সেই জঙ্গি সংগঠন যারা মুশারফকে দু-দুবার হত্যার ছক কষেছিল। সেই সময় প্রেসিডেন্ট পদে মুশারফ। ২০০৩ সালের রাওয়ালপিণ্ডিতে তাঁর উপর হামলা চালায় এক আত্মঘাতী বোমারু। যদিও অল্পের জন্য সে যাত্রায় বেঁচে যান মুশারফ। তাঁর কথায়, হামলাকারী কয়েক সেকেন্ড পর বোতাম(কোনও বিস্ফোরকের) টিপেছিল। তার মধ্যে সেতু পেরিয়ে যায় তাঁর গাড়ি। এই ঘটনার কথা মাথায় রেখে সম্প্রতি ইমরান খান সরকার জইশের বিরুদ্ধে যে পদক্ষেপ নিয়েছে বলে দাবি করছে, তাকে সমর্থন জানিয়েছেন প্রাক্তন পাক প্রেসিডেন্ট। 
এপ্রসঙ্গে মুশারফ বলেন, “এটা ভালো পদক্ষেপ। আমি সবসময় বলে এসেছি, জইশ ই মহম্মদ জঙ্গি সংগঠন। ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আমি খুশি যে সরকার ওদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিচ্ছে।” তবে পাকিস্তানের এই পদক্ষেপ নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। চাপে পড়ে আইওয়াশের জন্যও এমনটা করে থাকতে পারে পাকিস্তান, মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।